মঙ্গলবার, নভেম্বর ১৯

পাঁচটি কবিতা: ঝিলম ত্রিবেদী

ঝিলম ত্রিবেদী

দুপুর

দুপুরগুলো মাদুর পাতে ঘরে
পুরোনো রোদ চু-কিতকিত পায়ে
বাচ্চাদুটো আদুলপানা হাসি
মনআঁচলে চোরকাঁটা আটকায়

পাঁজরে আজ অতীত ভেসে ওঠে
উঠোন জুড়ে লাউগাছের প্রাণ
কাঁকন পরা দু’হাত ভরা ভাত
ভাতের ঘ্রাণে বাজে ঘরের টান

সম্পর্ক তারার মত জ্বলে
দিনের বেলা লুকিয়ে থাকে কোথায়
রাতের বেলা অন্ধকার এসে
তুলসীগাছে সম্পর্ক জ্বালায়

বৃষ্টি হয় বৃষ্টি হয় যদি
দুপুর ঝরে বেঁচে থাকার গায়ে
বুড়ো দাদুর ভাঙা চুলের পিঠে
সময় এসে রোদ্দুর পোয়ায়…

 

২৩শে জানুয়ারী

বসেছে শালিখ একা একা স্কুলটায়
চারপাশে মিঠে প্রজাতান্ত্রিক রোদ
শালিখ জানেনা বিশেষ বিশেষ খবর
ধানের ডগায় আরও দুধ জড়ো হোক
আজকে ২৩, আজকে সুভাষ-দিন
বাচ্চা মেয়েরা পুজো-পার্বণী মুখ
নরম পিঠের ডানায় বিনুনি দোলে
শালিখও শুনছে মেয়েদের ধুকপুক
তিনরঙা ভোর, তেরঙ্গা দেশ হাতে
মেয়েদের টোল, প্যারেডে যে মন নেই
পরিযায়ী হাসি থোকা-থোকা মেঘ দেখে
প্রেমিক পাখিও হারিয়ে ফেলেছে খেই…

এ মেয়েরা কেউ বিস্ময় হবে কাল
কেউ মুছে যাবে জীবনের ডাস্টারে
নেতাজি আপনি সময়কে বলে দিন
এদের আকাশ সে যেন চুরি না করে!

 

মেয়েপাখি

প্রতিটা শিকল খুলে
ছুটি পরে সাজবো একদিন…
সুরভিত রূপকথায় মোলায়েম সরল বাগিচা
তার দেশ, তার মীমাংসা না হওয়া ভোর
জড়িয়েছে আমার ডানায়
আমার পালকে
আগুনের শীতল নোলকে!
একযুগ কাঠ
একঝাঁক অগ্নিসম্ভবে
জ্বলে পুড়ে নিজের ঘরেই সব শেষ হয়ে গেছি….

পরদিন কিলবিলে চিতাকাঠে
আমার আঁতুড় দেখো উন্মাদ মানুষ—
মেয়েপাখি..
স্বেচ্ছামৃত্যুকেই পরিয়েছি বেয়াদপ জীবন!

জীব

শুনেছে আকাশরং হয়েছে জানলায়
শুনেছে ঘরও তার আকাশপাতাল
ফলন্ত বাড়িটার কোলভরা ঈশ্বর—
শুনেছে সে পাড়ায় পাড়ায়!
কোঁচড় ভরেছে অনুমতি নিয়ে নিয়ে
ম্রিয়মাণ ট্রাংকের কালো গরিয়সী
বেলপাতা পুরোনো.. নিবিড়…

কোন গর্ভে জন্মেছে সে?
জন্মেছে?
জন্মেছে কি!
সংসার দাগ দিয়ে গেলো
চকখড়ি-দাগ আর পেরোনো হলোনা কোনদিন…
তাণ্ডব মানায় না কোন মেয়ের এক মুঠো পরের বাড়িতে!

 

জলে জ্বলে যায়

আকাশের মধুর-করপুটে সকালের সুরেলা-চিঠি
কে-আনে, কে-পড়ে নেয়!
সীমারেখা বুলিয়ে যায় অপরাধপ্রবণ খেয়াল
কাঁধ দিতে এগিয়ে এসে পুত্ররা মৃত্যুর ধারে
শ্মশানের ধৈর্যে ভেঙে পড়ে!
আজ পূজো শরীর মনের..
নিয়মের আশ্চর্য-সেতু দিয়ে সংলাপ তৈরি করে শরৎ
পিণ্ডদান, দুনির আয়োজন করে শরৎ
মানুষের স্পর্শহীন জলে ওঠে প্রতিমার ঢেউ
স্পর্শকাতর জলে জ্বলে যায় সংসারের মা…..

ঝিলম ত্রিবেদীর জন্ম ১৯৮৪ সালে।  এখনও পর্যন্ত একটিই কাব্যগ্রন্থ প্রকাশিত ‘নিরুদ্দেশ সম্পর্কিত ঘোষণা’, ২০১৫ সালে।  বিভিন্ন লিট্‌ল ম্যাগাজিনে কবিতা নিয়মিত প্রকাশিত হয়ে চলেছে।  কবিতার পাশাপাশি চলছে গল্প, নাটক লেখাও।  ‘দেশ’ অনলাইন পত্রিকার ‘শ্রেষ্ঠ কবিতার স্রষ্টার খোঁজে’ প্রতিযোগিতায় ‘নির্বাচিত কবি’-র সম্মান।  ২০১৮ সালে জানুয়ারিতে বাংলাদেশে আমন্ত্রিত কবি হিসেবে ৪র্থ বাংলা কবিতা উৎসবে অংশগ্রহণ।

Comments are closed.