বৃহস্পতিবার, জুন ২৭

গত দশ বছরের শ্রেষ্ঠ ভারতীয় উপন্যাস এবার বাংলা অনুবাদে

দ্য ওয়াল ব্যুরো: সম্পর্কগুলো সব ‘ঘাচর ঘোচর’ হয়ে গেল।

সেই গল্পই শোনায় ছেলেটা কফিহাউসের ওয়েটার ‘ভিনসেন্ট’কে। মশলা ব্যবসা বাড়তে বাড়তে কেমন করে বদলে গেল তার জীবন। গোটা পরিবারের সম্পর্ক।

‘ঘাচর ঘোচর’ এই শব্দটার নেই কোনও আভিধানিক শব্দ। এই শব্দটার নির্মাণ করেছেন লেখক নিজেই। আর উপন্যাসের নামটাও তাই।

কন্নড় ভাষার এই উপন্যাসের লেখক বিবেক শানভাগ। নিউইয়র্ক টাইমসের মতে গত দশ বছরে ভারতের সাহিত্যে লেখা শ্রেষ্ঠ উপন্যাস।

ইতিমধ্যেই এই উপন্যাসটি অনূদিত হয়েছে ১৮টি ভাষায়। এইবার অনূদিত হল বাংলাতেও। বইটির প্রকাশক ‘পত্রভারতী’।

অনুবাদ করলেন অরুণাভ সিংহ। বাংলা থেকে ইংরাজিতে অনুবাদ করার জন্য ইতিমধ্যেই আন্তর্জাতিক খ্যাতি পেয়েছেন অরুণাভ। শংকরের চৌরঙ্গী উপন্যাসের ইংরাজি অনুবাদের জন্য ২০০৯ সালে পেয়েছেন ‘ইন্ডিপেন্ডেন্ট ফরেন ফিকশন প্রাইজ’ও।

‘ঘাচর ঘোচর’ তাঁর করা প্রথম বাংলা ভাষার অনুবাদ।

মঙ্গলবার সন্ধেয় এই বইটির আনুষ্ঠানিক প্রকাশ হল কলকাতার একটি পুস্তক বিপণীতে। উদ্বোধন করলেন কবি শ্রীজাত, লেখক দেবতোষ দাস, অরুণাভ সিংহ ও লেখক বিবেক শানভাগ নিজে। অনুষ্ঠানে হাজির ছিলেন দেজ পাবলিশিং এর অপু দে এবং  লেখক শীর্ষ বন্দ্যোপাধ্যায়ও।

পত্রভারতীয় কর্ণধার ত্রিদিবকুমার চট্টোপাধ্যায় জানালেন, বাঙালি পাঠক বিশ্বসাহিত্যের খোঁজ রাখলেও, জানেই না প্রতিবেশী ভাষার সাহিত্যে কী লেখা হচ্ছে। একসময় অন্য ভাষা থেকে বাংলায় অনুবাদ করার চল থাকলেও বেশ কিছুদিন ধরেই তার চল কমে গিয়েছিল। বিদেশে বহুচর্চিত ভারতীয় ভাষাতেই লেখা বই বাংলা অনুবাদে প্রকাশ করে সেই চর্চাই আবার শুরু করতে চায় পত্রভারতী।

এই বই বাংলা ভাষায় অনুবাদ হোক এমন ইচ্ছে অনেকদিন ধরেই ছিল লেখক বিবেক শানভাগের। বাংলা বলতে না পারলেও বাংলা বোঝেন তিনি। দীর্ঘদিন এই শহরেই কেটেছে তাঁর।

 

Leave A Reply