শনিবার, মার্চ ২৩

অন্তঃসত্ত্বাকে ডাক্তারের চড় ! তেতে উঠল ঝাড়গ্রাম হাসপাতাল

দ্য ওয়াল ব্যুরো, ঝাড়গ্রাম: ব্যথায় কাতর হয়ে বারবার দৃষ্টি আকর্ষণের চেষ্টা করায় অন্তঃসত্ত্বা বধূর গালে সপাটে চড় মারার অভিযোগ উঠল এক ডাক্তারের বিরুদ্ধে। এই ঘটনাকে ঘিরে বুধবার সকালে উত্তপ্ত হয়ে ওঠে ঝাড়গ্রাম সুপার স্পেশালিটি হাসপাতাল। এসডিপিও র নেতৃত্বে বিশাল পুলিশ বাহিনী গিয়ে পরিস্থিতি সামাল দেয়।

মঙ্গলবার সকালে হাসপাতালে ভর্তি হন আসন্নপ্রসবা ১৮ বছরের বধূ প্রীতি সিংহ দে। ঝাড়গ্রাম শহরের নৃপেন পল্লি এলাকার বাসিন্দা তিনি। অভিযোগ, গতকাল সারা রাত পেটে তীব্র যন্ত্রণায় কষ্ট পেয়েছেন প্রীতি। আজ সকালে স্ত্রী রোগ বিশেষজ্ঞ ওই ওয়ার্ডে এলে বারবার ব্যথার উপশম চেয়ে আর্জি জানাচ্ছিলেন প্রীতি। তখনই রেগে গিয়ে ওই বধূর গালে চিকিৎসক সপাটে চড় মারেন বলে অভিযোগ।

চোখের সামনে এই ঘটনা দেখে চিৎকার করে ওঠেন ওই বধূর মা দোলন গোস্বামী। তিনি হইচই শুরু করায় ছুটে আসেন আশেপাশের বেডে ভর্তি থাকা রোগীদের আত্মীয়রাও। এরপরেই ওই ডাক্তারের উপর চড়াও হন তাঁরা। তেতে ওঠে হাসপাতাল চত্বর। পুলিশে খবর দেন কর্তৃপক্ষ। ঝাড়গ্রামের এসডিপিও অনিন্দ্যসুন্দর ভট্টাচার্য এর নেতৃত্বে ঝাড়গ্রাম থানার পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। ওই ডাক্তারকে প্রসূতি বিভাগ থেকে বের করে বাড়ি পৌঁছে দেওয়া হয়। গণ্ডগোলের আশঙ্কায় তাঁর বাড়ির সামনে পুলিশ পিকেট বসানো হয়েছে।

প্রীতির মা দোলন বলেন , “আমার মেয়ে যন্ত্রণায় ছটফট করছিলো। তাকে কোনও ওষুধ, ইঞ্জেকশন এমনকি স্যালাইনও দেওয়া হয়নি। ডাক্তারকে বারবার বলতে আমার সামনেই ওকে চড় মারেন তিনি। আমরা  সুপারের কাছে অভিযোগ জানিয়েছি।”  তবে লিখিত ভাবে কেউ কিছু জানাননি বলে হাসপাতাল সূত্রে জানা গিয়েছে।

তাঁর সম্পর্কে ওঠা অভিযোগ সম্পর্কে ওই চিকিৎসক অবশ্য কোনও মন্তব্য করেননি। তবে ঝাড়গ্রাম সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালের সুপার মলয় আদক বলেন, “আমি মৌখিক অভিযোগ পেয়েছি, বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে। এই ঘটনার সঙ্গে সত্যিই যদি তিনি জড়িত থাকেন তাহলে ওঁর বিরুদ্ধে যথাযথ পদক্ষেপ করা হবে।”

Shares

Comments are closed.