সোমবার, সেপ্টেম্বর ২৩

পিটিয়ে মারা হল ব্যবসায়ীকে, বিবাহ বহির্ভূত সম্পর্কের জেরে খুন বলে অনুমান পুলিশের

দ্য ওয়াল ব্যুরো, মালদা:  বাড়ি থেকে টেনেহিঁচড়ে বার করে পিটিয়ে মারা হল এক ব্যবসায়ীকে। সোমবার রাতে এই ঘটনার জেরে ব্যাপক উত্তেজনা ছড়ায় পুরাতন মালদা শহরে। পরিস্থিতি সামাল দিতে নামাতে হয় কমব্যাট ফোর্স।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে,  মৃত ব্যক্তির নাম ভূপাল প্রামাণিক (৪৮)। পেশায় তিনি হস্তশিল্পী। বাঁশ ও বেতের কাজ সঙ্গে যুক্ত। এই কাজের প্রশিক্ষণ দেওয়ার জন্য ৫ নম্বর ওয়ার্ডের শর্বরী এলাকায় তাঁর বাড়িতেই একটি স্কুল রয়েছে। পাশাপাশি ভূপালবাবু জমি বেচাকেনাও সঙ্গেও যুক্ত বলে জানা গেছে।

ভূপালবাবুর স্ত্রী তপতী প্রামাণিক জানিয়েছেন, রাত আটটা নাগাদ ৮- ১০ জন ব্যক্তি হাতে লোহার রড, বাঁশ, নিয়ে তাঁদের বাড়ির সামনে এসে চিৎকার চেঁচামেচি করছিল। তাঁদের সঙ্গে দুই মহিলাও ছিল। তিনি বলেন, ‘‘ভয়ে দরজায় তালা দিয়ে আমরা দুজন গুটিসুটি মেরে ঘরে বসেছিলাম। কিন্তু কিছুক্ষণের মধ্যেই দরজা ভেঙে ফেলে ওরা। আমার স্বামীকে বাড়ি থেকে বের করে টেনে হিঁচড়ে রাস্তায় নিয়ে যায়। চিৎকার করেও আশেপাশের কারও সাহায্য পাইনি। আমার চোখের সামনে লোহার রড দিয়ে পিটিয়ে রক্তাক্ত করে ফেলে আমার স্বামীকে। আস্তে আস্তে নিস্তেজ হয়ে যান তিনি। তারপর অভিযুক্তরা এলাকা থেকে পালিয়ে যায়।  মালদা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসকরা তাঁকে মৃত বলে ঘোষণা করেন।’’

রাতে ওই ব্যবসায়ীর বাড়িতে তদন্তে যান অতিরিক্ত পুলিশ সুপার অরিন্দম সরকার, ডিএসপি শ্যামল মনল, পুরাতন মালদা থানার আইসি শান্তিনাথ পাঁজা সহ জেলা পুলিশের উচ্চপদস্থ কর্তারা। প্রাথমিক তদন্তে পুলিশ মনে করছে, প্রতিবেশী কোনও এক মহিলার সঙ্গে বিবাহ বহির্ভূত সম্পর্কের জেরেই এই খুনের ঘটনাটি ঘটেছে। পুরো বিষয়টি নিয়ে তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ। ইতিমধ্যে গ্রেফতার করা হয়েছে দুজনকে।

পুলিশ জানিয়েছে, ওই দম্পতির ছেলে কলকাতায় পাঠরত। পুরাতন মালদার শর্বরী পাড়ায় নিজেদের বাড়িতে থাকতেন স্বামী-স্ত্রী। ভূপালবাবুর  বাড়িতে হস্তশিল্পের প্রশিক্ষণের স্কুল চালানোর সময় এলাকারই এক তরুণীর সঙ্গে বিবাহ-বহির্ভূত সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েন। এমনকি ওই তরুণীর বিয়ের পরেও তাঁদের সম্পর্ক ছিল। এ নিয়ে ওই তরুণীর পরিবারের সঙ্গে বিবাদ শুরু হয়। ভূপালবাবুকে এই বিবাহ বহির্ভূত সম্পর্কের জন্য জেলও খাটতে হয়েছিল। কয়েকদিন আগে তিনি জামিনে ছাড়া পেয়ে বাড়ি এসেছেন। আর তারপরেই এই খুনের ঘটনাটি ঘটে।

মৃতের স্ত্রী তপতীদেবী পুলিশকে জানিয়েছেন, এ দিন ওই তরুণীর বাবা , কাকা , ভাই ও মা সহ ৮ থেকে ১০ জন হাতে লোহার রড, বাঁশ নিয়ে তাঁদের বাড়িতে চড়াও হয়। প্রকাশ্য রাস্তায় তাঁর স্বামীকে পিটিয়ে মারে । তিনি বলেন, ‘‘পাড়া-প্রতিবেশীরা সবাই দাঁড়িয়ে থেকে দেখল। কিন্তু কেউ একবারের জন্য ওঁকে বাঁচাতে এলো না। অ্যাম্বুল্যান্স পাইনি। রক্তাক্ত স্বামীকে টোটোতে করে মেডিকেল কলেজে নিয়ে গিয়েছি। কিন্তু শেষরক্ষা হল না।’’

পুলিশ সুপার অলোক রাজোরিয়া জানিয়েছেন, ভূপালবাবুর স্ত্রী তপতী প্রামাণিক এবং শ্যালিকা তাপসী প্রামাণিক পুরাতন মালদা থানায় ওই তরুণী ও তার পরিবারের ১০ জনের বিরুদ্ধে খুনের মামলার অভিযোগ দায়ের করেছেন। এই ঘটনায় মিলন দাস সহ দু জনকে গ্রেফতার করে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

Comments are closed.