বুধবার, অক্টোবর ১৬

তৃণমূল নেতার হুমকিতে বন্ধ চা কারখানা খুলতে মুখ্যমন্ত্রীকে চিঠি

দ্য ওয়াল ব্যুরো, জলপাইগুড়ি: এক তৃণমূল নেতার একগুঁয়েমিতে ভরা মরসুমে চা কারখানা বন্ধের অভিযোগ উঠল ডুয়ার্সে। বিষয়টি মুখ্যমন্ত্রীর কানে তুলতে তাঁর সঙ্গে সাক্ষাতের আর্জি জানিয়ে ইমেল করলো উত্তরবঙ্গের বণিক সভা। এই অভিযোগ অবশ্য পুরোপুরি ভিত্তিহীন বলে দাবি করেছেন ওই নেতা।

গত ১৯ জানুয়ারি ১০ জন শ্রমিককে ছাঁটাই করে রাজগঞ্জের সুন্দরম চা কারখানার মালিক কর্তৃপক্ষ। অভিযোগ, এরপরেই কারখানার মালিক ও ম্যানেজারের ওপর লাঠি, রড ইত্যাদি দিয়ে চড়াও হন তৃণমূল শ্রমিক সংগঠনের রাজগঞ্জ ব্লকের দাপুটে নেতা শাবুল মহম্মদ ও তাঁর অনুগামীরা। বহিরাগতদের সঙ্গে নিয়ে ব্যাপক হামলা চালানো হয়। সঙ্গে সঙ্গেই কারখানার তরফে রাজগঞ্জ থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়। অভিযুক্তদের গ্রেফতারও করে পুলিশ।

মালিক কর্তৃপক্ষের অভিযোগ, এরপর থেকেই কারখানা খোলা থাকলেও ইচ্ছুক শ্রমিকদের কাজে আসতে বাধা দিচ্ছে ওই তৃণমূল নেতা ও তাঁর দলবল। ছাঁটাই করা ১০ জন শ্রমিককে কাজে না ফেরালে কাউকে কাজে যোগ দিতে দেওয়া হবে না বলে জানিয়ে দেন তিনি। এরপর জলপাইগুড়ি জেলা পুলিশ সুপার, ডেপুটি লেবার কমিশনারের দফতর সহ বিভিন্ন জায়গায় বেশ কয়েকবার বৈঠক হয়। কিন্তু কোনও সমাধানসুত্র মেলেনি।

কারখানা মালিক সতীশকুমার আগরওয়াল বলেন, “আমার কারখানায় ৫৪ জন স্থায়ী শ্রমিক ছিলেন। নির্দিষ্ট আইন মেনে এদের মধ্যে ১০ জন শ্রমিককে ছাঁটাই করা হয়। এরপর থেকে আমার কারখানায় কাজ করতে ইচ্ছুক শ্রমিকদের গায়ের জোরে কাজে যোগ দিতে দিচ্ছে না তৃণমূল কর্মীরা।” তিনি জানান, লোকসভা ভোটের আগে বিভিন্ন বণিক সভার সঙ্গে বৈঠক করে কার কী সমস্যা জানতে চান এসপি। সমস্যা জানিয়েছিলেন। কিন্তু সুরাহা হয়নি। তাই মুখ্যমন্ত্রীকে ইমেল করে তাঁর সঙ্গে সাক্ষাতের জন্য আবেদন জানানো হয়েছে।

নর্থবেঙ্গল ইন্ডাস্ট্রিজ অ্যাসোসিয়েশনের সম্পাদক সুরজিত পাল জানান, এই কারখানার অচলাবস্থা উত্তরবঙ্গের শিল্পে প্রভাব ফেলেছে। তিনি বলেন, “আমরা মুখ্যমন্ত্রীর আবেদনে সাড়া দিয়ে পাঞ্জাব, হরিয়ানা সহ বিভিন্ন রাজ্য থেকে রাজগঞ্জের আমবাড়ি শিল্প তালুক সহ জেলার বিভিন্ন জায়গায় প্রায় ৩৬৫ কোটি টাকার বিনিয়োগ এনেছি। এই সুন্দরম কারখানার অচলাবস্থা দেখে এখন উদ্যোগপতিরা পিছিয়ে যাচ্ছেন। আমার মনে হয় মুখ্যমন্ত্রী দ্রুত পদক্ষেপ নিয়ে এই সমস্যা মিটিয়ে ফেলবেন।”

যাঁর বিরুদ্ধে অভিযোগ সেই তৃণমূল শ্রমিক নেতা শাবুল মহম্মদ বলেন, আমার বিরুদ্ধে মিথ্যে অভিযোগ করা হচ্ছে। এখানে অন্যায় ভাবে ১০ জনকে মারধর করে তাড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। তাঁদের কাজে ফেরত না নিলে কেউ কাজ করতে চাইছেন না। আমরা কাউকে কাজে আসতে বাধা দিইনি।”

Comments are closed.