সোমবার, অক্টোবর ১৪

পুজোর আগে ৫ টাকার দোকানে উপচে পড়ল ভিড়

দ্য ওয়াল ব্যুরো, শিলিগুড়ি : জিনস, শার্ট, জামা, কুর্তা মায় শাড়ি, কী নেই সেখানে ? অপেক্ষা শুধু বেছে নেওয়ার। যাই কিনবেন, দাম কেবল পাঁচ টাকা। অবাক হচ্ছেন তো ? আসলে পুজোর আগে এমন পাঁচ টাকার বিপণি খুলে রীতিমতো সাড়া ফেলে দিয়েছে শিলিগুড়ির ‘তারুণ্য’। এর সদস্যরা সবাই যে তরুণ তা তো বলাইবাহুল্য।

ওদের ডাকে সাড়া দিয়ে অনেকেই স্টলে দিয়ে যাচ্ছে নতুন পোশাক। অব্যবহৃত পোশাকও রেখে যাচ্ছেন অনেকে। সে গুলি ভালোভাবে কেচেধুয়ে পরিষ্কার করে, ইস্ত্রি করে সাজিয়ে রাখা হচ্ছে। যার যেমন দরকার, রঙ বেছে, সাইজ মেপে নিয়ে যাচ্ছেন এখান থেকে।

নিউ জলপাইগুড়ি থানা এলাকার কামরাঙাগুড়ি ওভারব্রিজ বাজারে রাস্তার পাশেই কাউন্টারটি। রাস্তার পাশে দোকান। রোদ, বৃষ্টিতে পোশাক নষ্ট হয়ে যাওয়া কিংবা চুরি হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। তাই পাশের একটি দোকানে রাখা থাকে ৫ টাকার ওই পোশাক-আশাক। প্রতিদিন সকালে এসে দোকান সাজান ‘তারুণ্য’র সদস্য সুদীপ্ত। সঙ্গে সঙ্গে ভিড় জমে যায়। কেউ আসেন পোশাক কিনতে। কেউ আসেন আবার শুধুই দেখতে।

তারুণ্যের সদস্যরা কেউ ছোট ব্যবসা করেন, কেউ আবার বেসরকারি সংস্থার চাকরি করেন, কেউ বেকার। সমাজ ও মানুষের জন্য কিছু করার তাগিদে তাদের এগিয়ে আসা। শুরুটা করেছিলেন বন্ধ চা বাগানের শিশুদের বিনে পয়সায় খাবার ও পোশাক বিলি করে। প্রায় ২ বছর ধরে বহু চা বাগানে গিয়ে খাবার ও পোশাক বিলি করেছেন তাঁরা। তারপরেই আস্তে আস্তে সমাজের পিছিয়ে থাকা অন্য মানুষদের জন্য কিছু করার ভাবনাটা মাথায় আসে। তারপরেই শুরু হয় এমন বিপণি গড়ার চেষ্টা।

‘তারুণ্য’র সদস্য রনি রাহা বলেন, ‘‘‌বিনা পয়সায় অনেকে পোশাক নিতে দ্বিধাবোধ করেন। তাই মাত্র ৫ টাকা দাম ধরা হয়েছে। এই টাকা দিয়ে আবার খাতা কলম কিনে তা দেওয়া হয় দুঃস্থদের। একেকজন পড়ুয়া এক মাসের খাতা, কলম, পেনসিল নিতে পারবে ওই ৫ টাকাতেই।’’

‘তারুণ্য’র সদস্য প্রিয়া রায় রুদ্র বলেন, ‘‘‌যারা গরিব মানুষের মুখে হাসি ফোটাতে সব সময় আমাদের পাশে থেকেছেন, তাদেরকে সম্মান জানাই। আগামীতে এমন আরও কয়েকটা দোকান শিলিগুড়িতে খোলার ইচ্ছে রয়েছে আমাদের।’‌’

এর আগে শিলিগুড়ির গুরুং বস্তিতে দোকান খুলে সাড়া ফেলে দিয়েছিলেন এক চিকিৎসক দম্পতি। তাঁদের দোকানে যে যেমন পারেন দিয়ে যান রুটি, ফল, কেক, পানীয় জল। যাদের দরকার সেই সব ক্ষুধার্ত মানুষ খাবার সংগ্রহ করেন সেখান থেকে। একেবারে বিনা পয়সায়। এই অন্য ভাবনাকেই আরও সমৃদ্ধ করল ‘তারুণ্য’।

 

 

Comments are closed.