মঙ্গলবার, সেপ্টেম্বর ১৭

১৪ ঘণ্টায় ২৭টি সিজারিয়ান বেবির জন্ম এগরার ছোট হাসপাতালে

কিরণ মান্না, পূর্ব মেদিনীপুর:  দুপুর দুটো থেকে পরের দিন ভোর চারটে। ১৪ ঘণ্টা ধরে একটানা পরপর সিজার করে ২৭টি বাচ্চার জন্ম দিলেন এগরা মহকুমা হাসপাতালের ডাক্তাররা। নেতৃত্বে ডাক্তার তপন সামন্ত। একটা মহকুমা হাসপাতালে এমন ঘটনা নজিরবিহীন বলেই মনে করে স্বাস্থ্য দফতর।

এগরা হাসপাতালের এখন তিনজন স্ত্রী রোগ বিশেষজ্ঞ রয়েছেন। হেড অফ দ্য ডিপার্টমেন্ট তপনবাবু। হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, সাধারণভাবে প্রতি মাসে গড়ে তিনশো থেকে সাড়ে তিনশো সিজার হয় এখানে। ১২ অগস্ট অনেক প্রসূতি একসঙ্গে ভর্তি হয়েছিলেন এই হাসপাতালে। তপনবাবু জানান, ওই দিন যাঁরা ভর্তি হয়েছিলেন তাঁদের বেশিরভাগকেই পরীক্ষা করে বুঝতে পারেন সিজার করতে হবে তাঁদের। তিনি বলেন, “সংখ্যাটা ছিল ২৭ জন। একই সঙ্গে এতজন প্রসূতির সিজার আগে কখনও হয়নি এই হাসপাতালে। তবুও কাউকেই অন্য হাসপাতালে রেফার করিনি। আমরাই টিম তৈরি করে পরপর সিজার করার প্রস্তুতি নিয়ে ফেলি। দুপুর দুটো থেকে শুরু করি কাজ। শেষ করতে ভোর চারটে বেজে যায়। সব মা ও শিশুরাই সুস্থ আছে।”

ওই দিন এগরা হাসপাতালে জন্ম নেয় ১৪ টি পুত্র সন্তান ও ১৩টি কন্যা সন্তান। আজ ফুটফুটে বাচ্চাদের নিয়ে বাড়ি ফিরে গেলেন সদ্য মায়েরা।

ডাক্তার তপন সামন্ত বলেন, আমিও অজ গাঁয়ের এক দুস্থ পরিবারের ছেলে ছিলাম। গ্রামের মানুষের সমস্যার কথা আমি ভালো করেই বুঝি। অসহায় গরিব মানুষদের এই ভাবে চিকিৎসা পরিষেবা দিতে পেরে সত্যিই খুব ভালো লাগছে।

Comments are closed.