বুধবার, সেপ্টেম্বর ১৮

বিজেপির রক্তদান শিবিরে হামলা, পাল্টা তৃণমূলের অফিস ভাঙচুর, রণক্ষেত্র মাথাভাঙা

  • 18
  •  
  •  
    18
    Shares

দ্য ওয়াল ব্যুরো, কোচবিহার:  তৃণমূল বিজেপির সংঘর্ষে উত্তপ্ত হয়ে উঠল মাথাভাঙা। পরিস্থিতি সামাল দিতে লাঠিচার্জ করে পুলিশ। বেশ কয়েক রাউন্ড গুলি চলে বলেও অভিযোগ। কে বা কারা গুলি ছুড়লো, তাই নিয়ে শুরু হয়েছে চাপানউতোর।

প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী অটলবিহারী বাজপেয়ীর প্রয়াণ বার্ষিকী উপলক্ষে আজ রক্তদান শিবিরের আয়োজন করেছিল বিজেপি। মাথাভাঙা শহরের ঝঙ্কার ক্লাবে চলছিল এই রক্তদান শিবির। দুপুর ১টা নাগাদ তৃণমূলের কর্মী সমর্থকরা এসে এই শিবিরে ব্যাপক ভাঙচুর শুরু করে বলে অভিযোগ। শিবিরের বাইরে দাঁড় করিয়ে রাখা বেশ কয়েকটি মোটরবাইকেও ব্যাপক ভাঙচুর চালানো হয়। এরপরেই ঘটনার প্রতিবাদে বিক্ষোভ শুরু করে বিজেপির কর্মী সমর্থকরা।

থমকে যায় যান চলাচল। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে আসে মাথাভাঙা থানার পুলিশ। বিজেপির অভিযোগ, বিক্ষোভকারীদের হঠাতে তারা লাঠিচার্জ করে। এতে জখম হন তাঁদের বেশ কয়েকজন কর্মী সমর্থক। গণ্ডগোলের সময় ওই এলাকায় বেশ কয়েক রাউন্ড গুলি চলে বলেও অভিযোগ উঠেছে। রাস্তায় পড়ে থাকতে দেখা যায় গুলির খোল। তবে গুলি চালানোর অভিযোগ অস্বীকার করেছে পুলিশ। কারা গুলি চালালো তাই নিয়ে শুরু হয়েছে চাপানউতোর।

এই ঘটনার কিছুক্ষণের মধ্যেই মাথাভাঙায় তৃণমূলের মূল কার্যালয়ে বিজেপির কর্মী সমর্থকরা ভাঙচুর চালায় বলে অভিযোগ। এর প্রতিবাদে মাথাভাঙা থানার সামনে বিক্ষোভ শুরু করেন তৃণমূল কর্মীরা। স্থানীয় তৃণমূল নেতা হাসিম আলি বলেন, “রাজ্য জুড়ে নৈরাজ্য সৃষ্টি করছে বিজেপি। মাথাভাঙাও তার ব্যতিক্রম নয়। এরই প্রতিবাদে থানায় বিক্ষোভ দেখাচ্ছি আমরা।”

বিজেপির পাল্টা অভিযোগ, তৃণমূল গোটা মাথাভাঙায় অশান্তির পরিবেশ তৈরি করেছে। বিজেপি নেতা অভিজিৎ বর্মন বলেন, “অটলজীর প্রয়াণ বার্ষিকীতে রক্তদান শিবিরের আয়োজন করা হয়েছিল। সেখানে অতর্কিতে হামলা চালিয়ে শিবির পণ্ড করেছে তৃণমূলের কর্মী সমর্থকরা। পুলিশ কোনও ব্যবস্থা না নিলে বৃহত্তর আন্দোলন শুরু করব আমরা।”

Comments are closed.