বুধবার, সেপ্টেম্বর ১৮

রাস্তা থেকে সরতে বলায় মার, গুরুতর জখম তৃণমূল পঞ্চায়েত সদস্যের স্বামী

দ্য ওয়াল ব্যুরো, বীরভূম: বাড়ি ফেরার পথে আক্রান্ত হলেন তৃণমূলের পঞ্চায়েত সদস্যের স্বামী। সিউড়ির হরিশরা গ্রামে। লোহার রড ও বাঁশ দিয়ে প্রচণ্ড মারধর করা হয় তাঁকে। কোপানো হয়েছে ধারালো অস্ত্র দিয়ে। আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাঁকে সিউড়ি সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

গতকাল রাত ন’টা নাগাদ হরিশরা পঞ্চায়েতের সদস্য সুপ্রিয়া হাজরার স্বামী নয়ন হাজরা, তাঁর দাদার মেয়েকে টিউশন ক্লাস থেকে বাড়ি নিয়ে যাচ্ছিলেন। হরিশরা গ্রামে তাঁর বাড়ির অদূরেই দাঁড়িয়েছিলেন বেশ কয়েকজন বিজেপি কর্মী। তাঁদেরকে রাস্তা থেকে সরে দাঁড়াতে বলেন নয়ন। তাই নিয়েই শুরু হয় বচসা। অচিরেই শুরু হয়ে যায় হাতাহাতি।

অভিযোগ, বেশ কিছু বিজেপি কর্মী নয়নের উপর ঝাঁপিয়ে পড়ে বাঁশ ও লোহার রড দিয়ে তাঁকে বেধড়ক মারধর করে। ধারালো অস্ত্রের কোপে রক্তাক্ত হয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়েন তিনি। খবর পেয়ে তাঁর দলের কর্মী সমর্থকরা ছুটে আসেন। সাঁইথিয়া গ্রামীণ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয় তাঁকে। অবস্থার অবনতি হওয়ায় রাতেই তাঁকে সিউড়ি সদর হাসপাতালে রেফার করা হয়। এই ঘটনায় এখনও কেউ গ্রেফতার হয়নি।

তৃণমূলের হরিশরা অঞ্চল সভাপতি প্রশান্ত মণ্ডল বলেন, “লোকসভা ভোটের পর থেকেই বিজেপি এলাকায় সন্ত্রাস সৃষ্টির চেষ্টা করছে। বিনা কারণে আমাদের কর্মীকে মারধর করলো।” অন্যদিকে বিজেপি জেলা সভাপতি শ্যামাপদ মণ্ডল অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, “ওই ঘটনা তৃণমূলের গোষ্ঠী দ্বন্দ্বের ফল। আমাদের বিরুদ্ধে মিথ্যে অভিযোগ আনা হচ্ছে।”

Comments are closed.