মঙ্গলবার, নভেম্বর ১২

হাতিই হোক আর চিতাবাঘ, ছাউনিতে ঢুকলে কী করবেন সেনাদের শেখালেন বনকর্তা

দ্য ওয়াল ব্যুরো, জলপাইগুড়ি : সেনাদের রেয়াত করে না হাতির পাল। চিতাবাঘ বা অন্য বন্যপ্রাণীও। তাই রাজ্যের বনাধিকারিকের কাছে ওয়াইল্ড লাইফ ম্যানেজমেন্টের তালিম নিল ভারতীয় সেনাবাহিনী।

বিন্নাগুড়ি সেনা ছাউনির ভিতর দিয়ে গেছে ডুয়ার্সের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ এলিফ্যান্ট করিডর। যার পোশাকি নাম রেতি-মরাঘাট এলিফ্যান্ট করিডর। তাই বিশাল এলাকা জুড়ে থাকা বিন্নাগুড়ি সেনা ছাউনিতে মাঝেমধ্যেই ঢুকে পড়ে হাতির পাল। আকছার ঢুকে পড়ে চিতাবাঘ বা অন্যান্য বন্যপ্রাণীও।

বিন্নাগুড়ি ওয়াইল্ড লাইফ স্কোয়াডের রেঞ্জার অর্ঘ্যদীপ রায় জানান, প্রচুর লোক থাকে এই সেনা ছাউনিতে। তাঁদের খাবারের উচ্ছিষ্ট খেতে চিতাবাঘ এবং হাতি অনেকসময়েই চলে আসে এখানে। শাবকের জন্ম দিতেও অনেক সময় সেনা ছাউনির ভিতর ঢুকে পড়ে চিতাবাঘ।

অর্ঘ্যদীপবাবু জানান, যদি করিডর ছেড়ে সেনা ব্যারাক বা কোয়ার্টার এর কাছাকাছি হাতি বা অন্য বন্যপ্রাণী ঢুকে পড়ে তবে সে ক্ষেত্রে কীভাবে তাদের তাড়িয়ে বার করা হবে সেই প্রশিক্ষণই দেওয়া হল সেনাবাহিনীর জওয়ানদের। কারণ খবর পেয়ে বনদফতরের কর্মী আধিকারিকদের ঘটনাস্থলে পৌঁছোতে কিছুটা সময় লাগে। সেই সময়ের মধ্যে যাতে কোনও অঘটন না ঘটে তার জন্যই এই প্রশিক্ষণ।

একই সঙ্গে, কী কী ব্যবস্থা গ্রহণ করলে চিতাবাঘ সহ অন্য বন্যপ্রাণীরা লোকালয়ে কম আসবে, সেইসব খুঁটিনাটি বিষয় নিয়েও দু’মাসে দু’দফায় সেনা জওয়ানদের তালিম দেওয়া হল বলে তিনি জানান।

Comments are closed.