শনিবার, ডিসেম্বর ১৪
TheWall
TheWall

চোখে চোখ রাখতে এই ১৫টি খাবারের সাথে বন্ধুত্ব করে নিন

দ্য ওয়াল ব্যুরো: সারাদিন ছুটোছুটি করছেন ভবিষ্যৎ ভালো করে বানাবেন বলে।  অথচ এই ছোটাছুটিতে, ঠাণ্ডা ঘরে যন্ত্রের সামনে ঝুঁকে বসে কাজ করতে করতে ফুরসত পাচ্ছেন না মনের খোরাক মিটিয়ে বই পড়ার।  তাই রাতে শুতে গিয়ে ওই মুঠোফোনেই টুকটাক পড়ে নিচ্ছেন।  এইভাবে ব্যালেন্স করতে করতে চোখের যে বারোটা বাজিয়ে ফেলছেন, সে খেয়াল রাখছেন কি? খেয়াল রাখতে এমন ১৫ টি খাবারের সাথে বন্ধুত্ব করুন, যা চোখের যত্ন করবে।

বেলপেপার
১৯২৮ সালে হাঙ্গেরিয়ান বায়োকেমিস্ট অ্যালবার্ট জেজেন্ট-গায়র্গি প্রথম বলেন লাল ক্যাপসিকামে রয়েছে ভিটামিন সি।  এই ভিটামিন সি আপনার চোখের রক্তনালীগুলিকে ভালো রেখে, ক্যাটারাক্টের সম্ভাবনা কমিয়ে দেয়।


স্যামন
স্যামন মাছ আমাদের শরীরের প্রয়োজনীয় ভিটামিন এবং খনিজগুলির একটি দুর্দান্ত উত্স (সেলেনিয়াম, ভিটামিন বি ১২, পটাসিয়াম), উচ্চমানের খনিজ তো পাোয়া যায়ই, সঙ্গে রয়েছে গুরুত্বপূর্ণ ওমেগা ৩ ফ্যাটি অ্যাসিডের মতো প্রয়োজনীয় জিনিসও।  বেশ কয়েকটি গবেষণায় উঠে এসেছে, ওমেগা ৩ ফ্যাটি অ্যাসিড ড্রাই আইজ় সিন্ড্রোম এবং ম্যাকুলার ক্ষয় থেকে চোখকে সুরক্ষিত করতে সাহায্য করে।

শুঁটি জাতীয় খাবার
যদি আপনি নিরামিষাশী হন, তাহলে তো এমনিই শরীরে অ্যানিম্যাল প্রোটিন যাচ্ছে না।  তাহলে চোখকে সুস্থ রাখতে হাই ফাইবার যুক্ত খাবারগুলোকে বিকল্প হিসেবে বেছে তো নিতেই হবে।  মটর ডাল, মুসুর ডাল, রাজমা এবং ছোলা আপনার খাওয়া দরকার।  এই জাতীয় খাবারগুলো থেকে আপনি শরীরের প্রয়োজনীয় জিঙ্ক পাবেন যথেষ্ট।  চোখের স্বাস্থ্য সুন্দর রাখতে যা সহায়তা করবে।

স্কোয়াশ
নিরামিষাশী বলে চোখের পুষ্টি ঠিকঠাক হচ্ছে না? চিন্তা না করে বাজার থেকে স্কোয়াশ কিনে আনুন।  সারা বছর স্কোয়াশ পাবেন আপনি বাজারে।  আর এতে থাকা লুটেইন, জেক্সানথিন, ভিটামিন সি, ওমেগা ৩ ফ্যাটি অ্যাসিড অনায়াসেই আপনার দৃষ্টিশক্তি স্বচ্ছ করতে সাহায্য করবে।

সাইট্রাস ফল
সাইট্রাস ফল সবসময়েই ভিটামিন সি-এর দুর্দান্ত উত্স।  আপনার যত বয়স বাড়ে, দৃষ্টিশক্তি তত ঝাপসা হতে থাকে।  এ সময়েই ভিটামিন ই, ভিটামিন সি অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট হিসেবে চোখের ক্ষতির বিরুদ্ধে লড়াই করে।  তাই তো আমেরিকান অপটোমেট্রিক সোসাইটি সুপারিশ করছে চোখের যত্ন নিতে লেবু, কমলা লেবু, মুসম্বি লেবু, বাতাবি লেবু খান বেশি করে।


কমলা রঙের যে কোনও সবজি, ফল
কমলা রঙের ফল এবং শাক সবজি যেমন গাজর, মিষ্টি আলু, এপ্রিকট, আম এগুলো সবই বিটা ক্যারোটিন সমৃদ্ধ।  যা আপনার চোখের স্বাস্থ্য সুন্দর রাখতে সাহায্য করে।

গরুর মাংস
ধর্মের কারণে বা নিজস্ব অভিরুচির কারণে না খেলে অন্য কথা, কিন্তু গরুর মাংস আপনার দৃষ্টিশক্তি অনেকটা উন্নত করতে সাহায্য করে জানতেন কি? দস্তার বা আমাদের শরীরের প্রয়োজনীয় জিঙ্কের একটি দুর্দান্ত উত্স গরুর মাংস।  বার্ধক্যজনিত দৃষ্টিশক্তি হ্রাসের ঢাল হিসেবে কাজ করে এই মাংস।  মুরগি এবং শুয়োরের মাংসেও এই জিঙ্ক পাবেন, তবে গরুর মাংসে অনেক বেশি পাবেন এই জিঙ্ক।

দানাশস্য
দানাশস্য জাতীয় খাবার আপনি যত খাবেন, আপনার বয়স বাড়ার সাথে সাথে যে ম্যাকুলার অবক্ষয় ঘটে তা অনেকটাই সামলে নিতে পারবেন।  শরীরের প্রয়োজনীয় জিঙ্ক, ভিটামিন ই, নিয়াসিন সবই আপনি দানাশস্য বা হোলগ্রেন জাতীয় খাবার থেকে পেয়ে যাবেন।

বাদাম জাতীয় খাবার
গবেষণা বলছে, সূর্যমুখী বীজ, চিনাবাদাম, বাদাম এবং হ্যাজেল নাট ভিটামিন ই-এর দুর্দান্ত উত্স।  বার্ধক্যজনিত চোখের সমস্যায়  ভিটামিন ই ঢালের মতো কাজ করে।

সবুজ শাকপাতা
পাতাযুক্ত সবুজ শাকসব্জি যেমন পালংশাক সহ অন্য সবুজ শাকগুলি ভিটামিন ই এবং সি-এর দারুণ উৎস।  এছাড়াও এগুলির মধ্যে প্রচুর পরিমাণে লুটিন এবং জ্যাক্সান্থিন রয়েছে যা দৃষ্টিশক্তি ভালো করে।

ডিম
চোখের সুরক্ষায় ডিমের ভূমিকা সম্পর্কে আপনার নিশ্চয় জানা নেই।  এতে থাকা জিঙ্ক আপনার শরীরকে অন্য খাবার থেকে লুটিন এবং জেক্সানথিন শোষণ করে শরীরের ব্যবহারের উপযোগী করতে সাহায্য করে।  এ ছাড়া ডিমের কুসুমের হলুদ-কমলা রঙ আপনার চোখের ম্যাকুলাকে ক্ষতিকারক নীল আলো থেকে সুরক্ষা দেয়।

দুধ ও দুগ্ধজাত খাবার
দই, দুধ এবং অন্যান্য দুগ্ধজাত পণ্য চোখের সুস্থ থাকার জন্য ভীষণভাবে দরকারি।  এগুলি জিঙ্ক, ভিটামিন এ, ক্যালসিয়াম এবং ফসফরাস সমৃদ্ধ।  ভিটামিন এ কর্নিয়া রক্ষা করতে সহায়তা করে, ছানি প্রতিরোধে সহায়তা করে দস্তা।


ঝিনুক

ঝিনুকের মুক্তো শুধু খুঁজলে হবে? বিভিন্ন চাইনিজ় রেঁস্তোরাতে গিয়ে যখন অয়েস্টার সস্ খোঁজেন তখন জানবেন তার চেয়েও বেশি ভালো হতে পারে ঝিনুকের ভিতরে থাকা প্রোটিন অংশ খেলে।  তাতে থাকা ক্যালসিয়াম, প্রোটিন আপনার চোখের জন্য খুবই ভালো।  আর যত ইচ্ছে এটা খেলে আপনার ক্যালোরিও বাড়বে না।  ঝিনুকে প্রচুর পরিমাণে জিঙ্কও থাকে।  চোখের রেটিনাকে সুস্থ রাখতে সাহায্য করে এই ঝিনুক।

ব্রকোলি
ভিটামিন এ (লুটিন, জেক্সানথিন, এবং বিটা ক্যারোটিন), ভিটামিন সি এবং ভিটামিন ই সবই পেতে পারেন ব্রকোলি থেকে।  প্রতিদিন রান্না করে হোক বা স্যালাডে ব্রকোলি খেয়ে নিন কিছুটা করে।  প্রতিদিনের প্রায় ৫০% ভিটামিন এ আপনি এই ব্রকোলি থেকেই শরীরকে দিন।  এক কাপ রান্না করা ব্রকোলি সহজেই আপনাকে এই পরিমাণ ভিটামিন দিতে সক্ষম।  দেখুন কত ঝকঝকে দেখতে পাবেন গোটা দুনিয়াটা।

পর্যাপ্ত জল
শরীর যেভাবে ডিহাইড্রেট করে, তাতে চোখও কিন্তু রক্ষা পায় না।  ভাববেন না আবার যেখানে এত জল রয়েছে, সেখানে জলের অভাব! হ্যাঁ হয়।  তাই চোখের স্বাস্থ্য সুন্দর রাখতে সারাদিনে ২ লিটার পর্যন্ত জল খান।

Comments are closed.