মঙ্গলবার, জানুয়ারি ২৮
TheWall
TheWall

কুস্তির ময়দানে কাত নামজাদা প্রতিদ্বন্দ্বী! সেরিব্রাল পালসি আক্রান্ত কিশোরকে কুর্নিশ নেটিজেনদের

Google+ Pinterest LinkedIn Tumblr +

দ্য ওয়াল ব্যুরো: কথায় বলে, ইচ্ছে থাকলে কী না হয়! লুকাস ল্যাসিনার কাহিনিটাও ঠিক তেমনই। ১৪ বছরের ছেলেটি এখন শুধু ইচ্ছেশক্তি আর মনের জোরের কারণেই সোশ্যাল মিডিয়ার হিরো। তাকে প্রাণভরে শুভেচ্ছা জানাচ্ছেন নেটিজেনরা, করছেন আশীর্বাদ। হবে নাই বা কেন। কুস্তির মঞ্চে তার প্রতিদ্বন্দ্বীকে কাত করে দেওয়ার ভিডিও সামনে এসেছে সম্প্রতি। তাতেই সেরিব্রাল পলসি রোগে আক্রান্ত লুকাস প্রমাণ করেছে, মনের জোর আর ইচ্ছেশক্তির মেলবন্ধন ঘটিয়ে অসাধ্য সাধন করে ফেলেছে সে।

দিন কয়েক আগে আমেরিকার ইয়োয়া রাজ্যের ওয়েস্ট ব্রাঞ্চ হাইস্কুলে আয়োজিত হয়েছিল বার্ষিক কুস্তি প্রতিযোগিতা। সেখানেই নাম দিয়েছিল লুকাস ল্যাসিনা। জন্ম থেকেই সেরিব্রাল পলসি অসুখে ভুগছে সে। ভাল করে হাঁটতেও পারে না। বিকাশ হয়নি মস্তিষ্কের। তাতে কী! যে জীবন দিয়ে লড়াই করছে প্রতিনিয়ত, তার জন্য রিংয়ে ঢুকে কুস্তি করা কী এমন ব্যাপার!

তাই তো লাল পোশাক পরে, মাথায় গার্ড বেঁধে এগিয়ে এল লুকাস। উল্টো দিকে নীল জামার কিশোর অস্টিন স্ক্র্যানটন। অ্যানামোসা এলাকার বাসিন্দা অস্টিন আবার এই বয়সেই বেশ নাম করেছে রেসলিং জগতে। কিন্তু এ সব নামের ঊর্ধ্বে, আদতেই যে সে মনের ভিতর থেকে এক জন খেলোয়াড়, তা এ দিন আরও এক বার প্রমাণ করে সে।

দেখুন সেই ভিডিও।

Jill Winger-Lacina এতে পোস্ট করেছেন সোমবার, 25 নভেম্বর, 2019

লুকাসের মতো প্রতিদ্বন্দ্বী উল্টো দিকে থাকলে ঠিক যেমন করে খেলা দরকার, তেমন করেই খেলতে থাকে সে। হার-জিৎ ফিকে হয়ে যায় অস্টিনের অনন্য চেষ্টার কাছে। যত বার লুকাস পড়ে যায়, তত বার এমন ভাবেই অস্টিন তাকে উঠে দাঁড়াতে সাহায্য করে, যেন সে নিজেই লুকাসকে ধরে উঠছে।

বারবার লুকাসের ‘মার খেয়ে’ কাত হয়ে পড়ে অস্টিন। গ্যালারি কাঁপিয়ে তখন লুকাসের জন্য উদ্দাম সমর্থনের আওয়াজ উঠেছে।

লুকাস-অস্টিনের এই ফাইটের ভিডিও পোস্ট করেছেন লুকাসের মা জিল উইঙ্গার ল্যাসিনা। লুকাসের পাশাপাশি অস্টিনেরও প্রশংসা করেছেন তিনি। আর তা সামনে আসতেই প্রশংসা, শুভেচ্ছার বন্যা বয়ে গিয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। ছোট্ট লুকাসকে সক্কলে ভালবাসায়, আদরে ভরিয়ে দিচ্ছেন।

Share.

Comments are closed.