শনিবার, মার্চ ২৩

মোবাইলে তোলা ছবি দেখিয়ে নিজের সন্তানকে ফেরত পেল বাবা-মা

দ্য ওয়াল ব্যুরো, মালদা : সদ্যোজাত জীবিত শিশুর বদলে পরিবারের হাতে মৃত শিশুকে তুলে দেওয়ার অভিযোগ ঘিরে তুলকালাম বাধল মালদা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে। আগেই মোবাইলে নিজের সন্তানের ছবি তুলে রেখেছিলেন বাবা। প্রমাণ হিসেবে সেই ছবি দেখিয়েই শুরু হয় আন্দোলন। অবশেষে সন্তানকে ফিরে পেয়েছেন তাঁরা।

ইংরেজবাজার থানার লক্ষ্মীঘাট এলাকার বাসিন্দা সাগরী বসাক। আজ সকালে সাগরীর প্রসবযন্ত্রণা উঠলে তাঁর স্বামী তাঁকে নিয়ে হাসপাতালে রওনা হন। কিন্তু মালদা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পৌঁছানোর আগেই শৈলপুরের কাছে অ্যাম্বুল্যান্সের মধ্যে একটি পুত্র সন্তানের জন্ম দেন তিনি। তড়িঘড়ি সদ্যোজাত ও মাকে এনে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

সাগরীর স্বামী সৌরভের অভিযোগ, যখন দুজনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল তাঁরা সুস্থ। কিন্তু কিছুক্ষণ পরেই হাসপাতালের নার্সরা এসে জানান, তাঁদের শিশুটির মৃত্যু হয়েছে। একটি শিশুর দেহও তাঁদের হাতে তুলে দেওয়া হয়। সৌরভ বলেন, ‘‘সবাই কান্নাকাটি শুরু করে। কিন্তু হঠাৎ আমার সন্দেহ হওয়ায় আমি মোবাইলে আমার ছেলের ছবি বার করে দেখি। অ্যাম্বুল্যান্সে ছেলের জন্মের পরেই ছবি তুলে রেখেছিলাম। বুঝতে পারি কোথাও একটা গণ্ডগোল হয়েছে।’’ এরপরেই হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে গাফিলতির অভিযোগ তুলে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন তাঁরা। যোগ দেন হাসপাতালে আসা অন্য রোগীদের পরিবারও।

কিছুক্ষণ পরেই অবশ্য ভুল বুঝতে পেরে তাঁদের শিশুটিকে ফিরিয়ে দেওয়া হয়। হাসপাতালের ডেপুটি সুপার জ্যোতিষ চন্দ্র দাস বলেন, ‘‘আমি ঘটনার কথা শুনেছি। তবে কেউ লিখিত অভিযোগ করেননি। পেলে নিশ্চই তদন্ত করে দেখবো।’’ শিশুটির বাবা অবশ্য জানান, মৌখিক ভাবেই অভিযোগ জানিয়েছেন তাঁরা। দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে আশ্বাস দেওয়া হয়েছে তাঁদের। তাই আর লিখিত অভিযোগ করেননি।

ভালবাসার দিনে হারানো ছেলেকে ফিরে পেয়ে এখন আনন্দে আত্মহারা তাঁরা।

 

Shares

Comments are closed.