শনিবার, জুলাই ২০

সাবধান! খাবারে অতিরিক্ত নুন ডেকে আনছে হাইপারটেনশন, কী ভাবে মিলবে রেহাই?

দ্য ওয়াল ব্যুরো:  উচ্চ রক্তচাপ বা হাইপারটেনশন এই সময়ের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ সমস্যা। অতিরিক্ত ওজন, স্ট্রেস, অনিয়মিত ডায়েট এবং কম ওয়ার্কআউট, সবকটিই উচ্চরক্তচাপ বৃদ্ধির অন্যতম কারণ। সেই সঙ্গে মাত্রাতিরিক্ত নুন খাওয়া রক্তচাপ বাড়িয়ে দেয় হু হু করে। ‘পাবলিক হেলথ ফাউন্ডেশন অব ইন্ডিয়া’ (PHFI)-র রিপোর্ট বলছে ভারতীয়দের মধ্যেই এই নুন খাওয়ার প্রবণতা সবচেয়ে বেশি। তাই এ দেশের অধিকাংশই মানুষই ভোগেন হাইপারটেনশন বা উচ্চ রক্তচাপজনিত সমস্যায়।

অন্ধ্রপ্রদেশ, হরিয়ানা এবং দিল্লির বাসিন্দাদের উপর সমীক্ষা চালিয়ে গবেষকেরা দেখেছেন, উত্তর ভারতের রাজ্য দু’টিতে মানুষজন দিনে ৯.৫ গ্রাম নুন খান। দক্ষিণ ভারতে এই মাত্রাটা ১০.৪ গ্রামেরও বেশি। অথচ, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (WHO)-এর রিপোর্ট বলছে দিনে ৫ গ্রামের চেয়ে বেশি নুন খাওয়া স্বাস্থ্যের পক্ষে ক্ষতিকর।

কী কী উপসর্গ দেখা দেয় উচ্চ রক্তচাপে:

সমীক্ষা বলছে, ভারতের প্রতি তিন জন প্রাপ্তবয়স্কের মধ্যে এক জন এই সমস্যায় আক্রান্ত। সাধারণত রক্তচাপ যদি ১৪০/৯০-এর বেশি হয় তা হলেই চিকিৎসকেরা একে উচ্চ রক্তচাপ বলে চিহ্নিত করে থাকেন। আর যদি রক্তচাপ ১৮০/১২০ ছাড়িয়ে যায় তা হলে পরিস্থিতি ভয়াবহ হয়ে উঠতে পারে। উচ্চ রক্তচাপের কারণে মাথা যন্ত্রণা, শ্বাস-প্রশ্বাসে সমস্যা, নাক দিয়ে রক্তপাতের মতো উপসর্গ দেখা দেয়। বাড়ে হৃদরোগের সম্ভাবনাও। তা ছাড়াও দীর্ঘদিন ধরে কোনও বাহ্যিক লক্ষণ ছাড়াই উচ্চ রক্তচাপের সমস্যায় ভোগেন অনেকেই। যার ফলে রক্তনালী ব্লক হয়ে গিয়ে নানা রকম জটিলতা দেখা দিতে পারে। এ কারণেই হাইপার টেনশনকে ‘দ্য সাইলেন্ট কিলার’ বলে অভিহিত করেন চিকিৎসকেরা।

গবেষকেরা জানিয়েছেন, বাজার চলতি ফাস্ট ফুড বা প্যাকেটজাত খাবারে স্বাদ বাড়াতে এবং দীর্ঘদিন টাটকা রাখার জন্য নুনের পরিমাণ বেশি দেওয়া থাকে। বেকন, সালামি, সসের মধ্যে কেচআপ, সয়া সস, পাঁউরুটি এবং অন্যান্য কৌটো বন্দি খাবারে নুনের মাত্রা সর্বাধিক। চটজলদি পেট ভরাতে এখনকার প্রজন্ম এই সব বাজারচলতি খাবারেই বেশি রাখেন। ফলে ২০-৩০ বছর বয়সীদের মধ্যেও বাড়ছে হাইপারটেনশনের প্রবণতা।

কতটা নুন খাওয়া প্রয়োজন? কী বলছে WHO?

 প্রাপ্তবয়স্কদের জন্য: দিনে ৫ গ্রামের থেকে বেশি নুন খাওয়া একেবারেই উচিত নয়। এক চামচ নুনই শরীরে সোডিয়ামের চাহিদা পূরণের জন্য যথেষ্ট।

অপ্রাপ্তবয়স্কদের জন্য: ২-১৫ বছর বয়সীদের জন্য দিনে ৫ গ্রাম বা তার চেয়েও কম নুন খাওয়া শরীরের জন্য ভাল। আয়োডিন সমৃদ্ধ নুন এ ক্ষেত্রে বেশি কার্যকরী। মস্তিষ্কের বিকাশ ঘটাতে সাহায্য করে।

কী ভাবে কমাবেন নুন খাওয়া?

১) WHO জানাচ্ছে রান্নায় যতটা সম্ভব কম নুন খান। পারলে নুন দেওয়াই বন্ধ করে দিন।

২) খাওয়ার টেবিলে নুনের কৌটো নৈব নৈব চ। এতে কাঁচা নুন খাওয়ার ইচ্ছা কিছুটা হলেও কমবে।

৩) নুন দেওয়া স্ন্যাকস খাওয়া বন্ধ করুন।

৪) খুব কম সোডিয়াম রয়েছে এমন খাবার কিনুন। প্যাকেট খাবার কেনার আগে সোডিয়ামের পরিমাণ দেখে তবেই কিনুন।

৫) ফাস্ট ফুডের বদলে টাটকা সব্জি এবং ফল খান। এতে থাকে প্রচুর পরিমাণ পটাসিয়াম যা শরীরের সিস্টোলিক এবং ডায়াস্টোলিক প্রেসারকে নিযন্ত্রণে রাখে। শরীরে ফ্লুইডের মাত্রা, অ্যাসিড ব্যালেন্স এবং ইলেকট্রলাইটের ভারসাম্য বজায় রাখে।

Leave A Reply