শুক্রবার, জুলাই ১৯

ভাটপাড়া আবার অশান্ত, ফুটবল নিয়েও বোমাবাজি, পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে মৃত্যু

দ্য ওয়াল ব্যুরো, উত্তর ২৪ পরগনা : ফের অশান্তি ভাটপাড়ায়। আজ দুপুরে ফুটবল খেলাকে কেন্দ্র করে ব্যাপক বোমাবাজি শুরু হয় ভাটপাড়ার কাঁটাডাঙা রেল কোয়ার্টার্স লাগোয়া রেল মাঠে। পরে পুলিশ গিয়ে লাঠিচার্জ করে উত্তেজিত জনতাকে হটিয়ে দেয়। এ দিন দুপুর  আড়াইটে নাগাদ জগদ্দল থানা এলাকায় এক দুষ্কৃতীকে ধরতে গেলে পুলিশকে লক্ষ্য করে সে গুলি ছুড়তে থাকে বলে অভিযোগ। পুলিশের পাল্টা গুলিতে মৃত্যু হয় প্রভু সাউ (৩০) নামে ওই ব্যক্তির।

ভাটপাড়া-জগদ্দলে শান্তি ফেরাতে পুলিশের অভিযান চলছে নিয়মিত। এ দিন দুপুর আড়াইটে নাগাদ জগদ্দল থানা এলাকার সুন্দিয়া হাউজিং এস্টেটে প্রভু সাউ নামে এক দুষ্কৃতীর খোঁজে যায় পুলিশ। তাড়া খেয়ে এক ব্যক্তির বাড়ির ছাদে উঠে যায় ওই দুষ্কৃতী। পুলিশ জানিয়েছে, সেখান থেকে তাদের লক্ষ্য করে গুলি চালাতে শুরু করে ওই দুষ্কৃতী। এই ঘটনায় আতঙ্কিত হয়ে পড়েন পথচলতি মানুষজন। প্রাণ বাঁচাতে শুরু হয়ে যায় হুড়োহুড়ি। বাধ্য হয়েই পাল্টা গুলি চালায় পুলিশ। বিএন বোস হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে প্রভু সাউকে মৃত বলে ঘোষণা করা হয়।

এই ঘটনার রেশ কাটতে না কাটতেই কাঁটাডাঙা রেল কোয়ার্টার্সে সম্মিলনী ক্লাবের ফুটবল প্রতিযোগিতা ঘিরে তেতে ওঠে এলাকা। মুড়িমুড়কির মতো বোমা পড়তে শুরু করে। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছোয় পুলিশ। নামানো হয় কমব্যাট ফোর্সও। লাঠি চার্জ করে জনতাকে ছত্রভঙ্গ করে তারা। তবে কী কারণে এই সংঘর্ষ তা পুলিশের কাছে এখনও স্পষ্ট নয়। পুলিশ জানিয়েছে, কোনও তরফেই এখনও কোনও অভিযোগ জমা পড়েনি।

ভাটপাড়া বিধানসভার উপ নির্বাচন ঘিরে গত ১৯ মে থেকে তেতে ওঠে ভাটপাড়া। শুরু হয়  বিজেপি ও তৃণমূলের তুমুল সংঘর্ষ।  ভাঙচুর, বোমাবাজি, গুলিবৃষ্টিতে  রণক্ষেত্রের চেহারা নেয় গোটা তল্লাট। পুলিশ ও আধা সামরিক বাহিনীর জওয়ানরা বারবার পরিস্থিতি সামাল দিলেও গত দেড় মাস ধরেই জারি রয়েছে বিক্ষিপ্ত অশান্তি। যখন তখন বোমাবাজি, গুলিবৃষ্টি দস্তুর হয়ে পড়েছে কাঁকিনাড়া-ভাটপাড়ার বিস্তীর্ণ এলাকায়। গিয়েছে প্রাণও। প্রশাসনিক উদ্যোগে পরিস্থিতি কিছুটা সামাল দেওয়া গেলেও পুরোপুরি যে যায়নি আজকের ঘটনা তারই প্রমাণ।

 

Comments are closed.