রবিবার, আগস্ট ১৮

পরিবহর পাশে থেকেও বসিরহাট হাসপাতালে রোগী দেখলেন ডাক্তাররা

বিমল বসু, বসিরহাট : এনআরএস হাসপাতালের জুনিয়র ডাক্তার পরিবহ মুখোপাধ্যায়কে মারধরের প্রতিবাদে রাজ্যজুড়ে আজ হাসপাতালের আউটডোর বন্ধ রেখে প্রতিবাদ জানাচ্ছেন চিকিৎসকরা। তাই সকাল থেকেই পরিষেবা না পেয়ে ভোগান্তির মুখে পড়েন বিভিন্ন হাসপাতালে আসা রোগী ও তাঁদের পরিজনরা। রাজ্যের উত্তর থেকে দক্ষিণ সর্বত্রই। সেখানেই ব্যতিক্রমী ছবি বসিরহাট সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে। পরিবহর পাশে দাঁড়িয়েও এ দিন পরিষেবা সচল রাখলেন এই সরকারি হাসপাতালের ডাক্তাররা।

তাঁরা জানালেন, পরিবহর উপরে হামলার ঘটনা এতটাই ভয়াবহ যে তার নিন্দার ভাষা নেই। এই ঘটনার প্রতিবাদে যে আন্দোলন, তাও সমর্থন করেন তাঁরা। তবুও দূরদূরাম্ত থেকে আসা রোগীদের মুখের দিকে তাকিয়েই এ দিন চিকিৎসা চালু রেখেছেন। হাসপাতালের সুপার শ্যামল হালদার বলেন, “এনআরএসে যা ঘটেছে তা ন্যক্কারজনক। প্রতিবাদ তো করতেই হবে। পরিবহর পাশে আছি আমরা সবাই। তবু রোগীদের কথা মাথায় রেখেই আজ হাসপাতালের আউটডোর খোলা রেখেছি। সুন্দরবনের প্রত্যন্ত এলাকার মানুষ আসেন এখানে। একদিন ফিরে গেলে আবার কবে আসতে পারবেন জানেন না অনেকেই। তাই ডাক্তারবাবুরা মিলেই আজ আউটডোর চালু রাখার সিদ্ধান্ত নেন।”

অন্যদিন আউটডোরে প্রায় হাজার দেড়েক মানুষ আসেন চিকিৎসার জন্য। আজ সেখানে ৪০২ জন। তাঁরা প্রত্যেকেই ডাক্তার দেখিয়ে ফিরেছেন বলে দাবি করেন সুপার। তিনি জানান, হাসপাতাল বন্ধ থাকবে জানতে পেরে অনেকেই আসেননি। যাঁরা এসেছেন তাঁরা একেবারে প্রত্যন্ত এলাকা থেকে। কিছু না জেনেই চলে এসেছেন। তাঁদের ফিরতে হয়নি।

বাদুরিয়া থেকে আসা আসরাফুল হক বলেন, “আজ হাসপাতাল বন্ধ থাকবে জানতাম না। অনেকটা রাস্তা এসে তবে জানতে পারি। ভাবছিলাম ফিরে যেতে হবে। কিন্তু ডাক্তারবাবু দেখে দিলেন।”

হিঙ্গলগঞ্জ থেকে আসা তাপস দাস বলেন, “অনেকটা পথ এসেছি। ডাক্তারবাবুকে না দেখিয়ে ফিরতে হলে মুশকিলে পড়ে যেতাম। সেটা আর হল না।”

এরজন্য ডাক্তারবাবুদের রীতিমতো কুর্নিশ জানালেন তাঁরা।

Comments are closed.