সোমবার, এপ্রিল ২২

পাঁশকুড়ায় প্রচারে গিয়ে আক্রান্ত ভারতী , গাড়ি ভাঙচুর

দ্য ওয়াল ব্যুরো, পূর্ব মেদিনীপুর :  ফের প্রচারে গিয়ে আক্রান্ত হলেন ঘাটাল কেন্দ্রের বিজেপি প্রার্থী ভারতী ঘোষ।  আজ পূর্ব মেদিনীপুরের পাঁশকুড়ায় প্রচারে গেলে তাঁর গাড়ি ভাঙচুর করা হয় বলে অভিযোগ। ঘটনার প্রতিবাদে রাস্তায় নেমে অবস্থানে বসেন প্রার্থী। অভিযোগের তির তৃণমূলের দিকে হলেও তা অস্বীকার করেছেন শাসকদলের নেতারা।

বিজেপি সূত্রের খবর, বৃহস্পতিবার নির্বাচন কমিশনের কাছ থেকে অনুমতি নিয়েই পাঁশকুড়া (পশ্চিম) বিধানসভার বিভিন্ন এলাকায় ভোট প্রচারে গিয়েছিলেন ভারতী। সকাল ১১ টা নাগাদ যশোড়া বাজার থেকে প্রচার শুরু করেন তিনি। ১২ টা নাগাদ দলীয় কর্মীদের নিয়ে পাঁশকুড়া থানার মাইশোরার দিকে প্রচারে যান ভারতী। অভিযোগ, মাইশোরা পৌঁছোনোর আগে গোপালহাজরার কাছে কয়েকশো তৃণমূল কর্মী সমর্থক কালো পতাকা নিয়ে শ্লোগান দিতে দিতে ভারতী ঘোষের পথ আটকায়। বাধা পেয়ে গাড়ি থেকে নেমে আসেন ভারতী। এরপরেই তাঁর গাড়ির উপর তারা চড়াও হয় এবং গাড়িটি ভাঙচুর করে। ভারতীকে লক্ষ্য করে ঢিল ছোড়া হয় বলেও বিজেপির দাবি। ঘটনার প্রতিবাদে সেখানেই রাস্তায় বসে পড়েন ভারতী। অবস্থান চলে বেশ কয়েক ঘণ্টা। যুযুধান দু পক্ষের আস্ফালনে উত্তেজনা ছড়ায় গোটা এলাকায়।

সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে ভারতী ঘোষ বলেন, “এই নিয়ে তিন তিনবার আমার উপর হামলা হল। আমি ঘাটাল লোকসভা এলাকার মানুষের দু:খ-দুর্দশা বুঝতে তাঁদের ঘরে ঘরে যাচ্ছি। আজ এখানকার মানুষরা জানাচ্ছেন শাসকদলের রক্তচক্ষু এড়িয়ে গত পঞ্চায়েত ভোটের সময় তাঁরা কেউই ভোট দিতে পারেননি। আমি বলছি, এটা নয় যে, আমাকে ভোট দিতে হবে। কিন্তু আপনারা বাড়ি থেকে বেরিয়ে ঠাণ্ডা মাথায়, নিশ্চিন্তে ভোটটা দিন।”

তিনি জানান, আজকের গোটা ঘটনা তিনি নির্বাচন কমিশনকে জানাবেন। কোনও ব্যবস্থা না নেওয়া হলে বৃহত্তর আন্দোলনে নামবেন। গতমাসের শেষের দিকে দাদপুরে প্রচারে বেরিয়ে আক্রান্ত হয়েছিলেন ভারতী ঘোষ। মারধর করা হয়েছিল তাঁর ইলেকশন এজেন্টকে। আজ আরও একবার।

তৃণমূল অবশ্য এই অভিযোগ অস্বীকার করেছে। জেলার যুব তৃণমূল সভাপতি কুরবান আলি বলেছেন, “এটার সঙ্গে আমাদের দলের কোনও সম্পর্ক নেই। উনি এসপি থাকার সময় পুলিশ গাড়ি চালকদের থেকে সমানে তোলা তুলত। তাই ওঁকে দেখে মানুষের ক্ষোভের বহিঃপ্রকাশ হয়েছে।”

Shares

Comments are closed.