বিস্ফোরণ কাণ্ডে ধৃতরা তো তৃণমূল, অনুব্রতর দাবি উড়িয়ে বলছেন বাসিন্দারা

দ্য ওয়াল ব্যুরো, বীরভূম : কাঁকরতলায় সোমবার বিস্ফোরণের পর জেলা তৃণমূল সভাপতি অনুব্রত মণ্ডল দাবি করেছিলেন, বিজেপির দুষ্কৃতীরা এই বিস্ফোরণের সঙ্গে যুক্ত। কিন্তু এখনও পর্যন্ত এই ঘটনায় যে সাতজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে তারা সবাই এলাকার পরিচিত তৃণমূল কর্মী বলে দাবি করলেন এলাকার বাসিন্দারা।

মঙ্গলবার সিআইডি ও বম্ব স্কোয়াডের কর্মী-আধিকারিকরা বিস্ফোরণে ক্ষতিগ্রস্ত তৃণমূল কার্যালয়ে যান এবং বেশ কিছু নমুনা সংগ্রহ করেন। মজুত বোমা থেকেই বিস্ফোরণ ঘটেছে বলে তাঁদের অনুমান। কার্যালয় থেকে মেলে একটি হামানদিস্তা ও অনেকটা কাঁচের গুড়ো। যা মূলত বোমা তৈরির কাজে ব্যবহৃত হতো বলে জানিয়েছেন তাঁরা।

বিস্ফোরণের পরেই পুলিশ মোট ২৬ জনের বিরুদ্ধে স্বতঃপ্রণোদিত মামলা রুজু করে। তাদের মধ্যে সাতজনকে গ্রেফতার করে এ দিন দুবরাজপুর আদালতে তোলা হয়। পুলিশ জানিয়েছে, এই ঘটনায় গ্রেফতার করা হয়েছে শেখ আনসার, শেখ সাত্তার, শেখ হাসমত, শেখ সালাউদ্দিন, শেখ এনামুল, শেখ নাজমুল এবং আরও একজনকে। এদের মধ্যে পাঁচজনের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অপরাধমূলক কাজকর্মের মামলা রয়েছে।  এই কার্যালয়টি শেখ কালো নামে যে তৃণমূল কর্মী দেখাশোনা করতেন, বিস্ফোরণের পর তিনি এলাকাছাড়া।

সোমবার বেলা দশটা নাগাদ কাঁকরতলা থানার বড়া অঞ্চল তৃণমূল কংগ্রেসের কার্যালয়ে বোমা বিস্ফোরণ হয়।  পাকা দেওয়াল ও কংক্রিটের ছাদ হলেও বিস্ফোরণের তীব্রতা এতটাই ছিল, যে তাতে গোটা বাড়িটিই সম্পূর্ণ ভেঙে গিয়েছে। এই ঘটনায় এখনও ভয়ের আবহ গোটা গ্রামজুড়ে।

 

Comments are closed, but trackbacks and pingbacks are open.