মঙ্গলবার, নভেম্বর ১৯

আজ বিশ্বের চার নম্বর হবে ভারত, জেনে নিন সাফল্যের ১০ খতিয়ান

দ্য ওয়াল ব্যুরো: আজ চাঁদের অন্ধকার দিকে নামবে ভারত। আমেরিকা, রাশিয়া, চিন-এর পরেই চাঁদের বুকে পা রাখার নিরিখে লেখা হয়ে যাবে ভারতের নাম। আর চাঁদের আঁধার অংশে নামার বিচারে ভারত হবে এক নম্বর। আমরা কি ‘বামন’ হয়ে চাঁদে হাত বাড়াচ্ছি? এমন প্রশ্ন যাঁরা তুলবেন তাঁদের জন্য রইল ১০ তথ্য–

১। মনে রাখতে হবে চন্দ্রযান-২-এর যাত্রা শুধুই প্রযুক্তিবিদ্যার ক্ষেত্রে বড় মাইল ফলক হবে না, সামগ্রিক বিজ্ঞানের গবেষণাতেও নতুন দিগন্ত খুলে দিতে পারে।

২। এত কম খরচে যে মহাকাশ অভিযান সম্ভব তা নিয়েও এক বড় সাফল্য দেখাবে ভারত। হাজার কোটি টাকা খরচ শুনে এমন ভাবা ঠিক হবে না যে বিশাল টাকা বিনিয়োগ হয়েছে। মনে রাখতে হবে যে অভিযানে ভারত নেমেছে তার তুলনায় এটা কিছুই খরচ নয়।

৩। আমেরিকা, রাশিয়া, চিন, জাপানই নয়, আরও অনেক দেশই কৃত্রিম উপগ্রহ পাঠাতে চাইছে। তার পিছনে যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নতি থেকে নিরাপত্তার প্রয়োজনের মতো অনেক কারণ আছে। তাদের পথপ্রদর্শক হয়ে উঠবে ভারত।

৪। ভারতের মহাকাশ গবেষণা সংস্থা ‘ইসরো’যদি সাফল্য পায় তবে ভারতের প্রযুক্তিবিদ্যার চর্চা অন্য মাত্রা পাবে। মনে রাখতে হবে মহাকাশ প্রযুক্তিতে এগিয়ে থাকতে হলে থেমে থাকলে চলে না। একের পর এক লক্ষ্য নিয়ে এগিয়ে যেতে হয়।

৫। মহাকাশ-প্রযুক্তির যে অভিজ্ঞতা ভারত সঞ্চয় করবে তা আগামী দিনে মহাকাশে পাড়ি দিতে সক্ষম দেশের প্রতিযোগিতায় সামনের সারিতে এনে দেবে দেশকে।

৬। আগামী দিনে কোন দেশ চাঁদে যাবে, কারা সেখান থেকে খনিজ আনবে বা মহাকাশ স্টেশন বানাবে, তার দৌড়ে এগিয়ে থাকবে ভারত।

৭। এই অভিযান যদি সফল হয়, তবে দেশের শিক্ষা ক্ষেত্রেও ব্যাপক বদল এনে দেবে। ছয়ের দশকে চন্দ্রাভিযানের পর আমেরিকায় বিজ্ঞান- শিক্ষার জোয়ার এসেছিল। এবার চন্দ্রাভিযান ভারতে ছাত্রছাত্রীদের বিজ্ঞান এবং প্রযুক্তিবিদ্যার প্রতি আগ্রহ আরও বাড়াবে।

৮। চাঁদে জলের অস্তিত্ব আগেই জানা গিয়েছে। এবার জল ও বরফের পরিমাণ এবং তা ঠিক কোথায় কোথায় রয়েছে, সে তথ্য আগামী দিনে চাঁদে আমাদের বাসস্থান বা চাঁদ থেকে আরও দূরে পাড়ি জমানোর জন্য স্টেশন বানানোর ক্ষেত্রে কাজে লাগবে।

৯। জল ছাড়াও চাঁদে ‘হিলিয়াম-৩’ মৌল নিয়ে গবেষণার প্রয়োজন। সে জন্যও চন্দ্রযান-২-এর পাঠানো তথ্য খুবই সাহায্য করবে।

১০। চন্দ্রযান-২ শুধু চাঁদে যাবে না। সেখানে গিয়ে নানা গবেষণা করবে। আর তার ফল বদলে দিতে পারে ভারতের ভবিষ্যৎ। একই সঙ্গে গোটা বিশ্বে ভারতের অবদান বিজ্ঞানের নব নব আবিষ্কারের দরজা খুলে দেবে।

Comments are closed.