বৃহস্পতিবার, জুলাই ১৮

১৩০ কোটিকে হারিয়ে ফাইনালে ৪৮ লাখের দেশ, ১০ তথ্যে চিনে নিন মজার নিউ জিল্যান্ডকে

দ্য ওয়াল ব্যুরো: ১৩০ কোটির দেশকে হারিয়ে দিল মাত্র ৫০ লাখের নিউজিল্যান্ড। কেমন সেই দেশ! দেখে নিন কিউইদের দেশ সম্পর্কে ১০ তথ্য–

১. ১৬৪২ সালে ডেনমার্কের অনুসন্ধানকারী অ্যাবেল সাসম্যান প্রথম নিউ জিল্যান্ডের খোঁজ পান। অনেকবার নামবদলের পরে ব্রিটিশরা দেশটির বর্তমান নাম দেয়। দেশের রাজধানী ওয়েলিংটন।

২. নিউ জিল্যান্ড আসলে জিল্যান্ডিয়া নামে একটি মাইক্রো কন্টিনেন্টের অংশ। আয়তনে অস্ট্রেলিয়ার প্রায় অর্ধেক। আসলে ভূগর্ভস্থ প্লেট টেক্টোনিকের গতিবিধির জন্য প্রায় ২৩ মিলিয়ন বছর আগে থেকেই এই ভূখণ্ডের ৯৩ শতাংশের মতো অংশ প্রশান্ত মহাসাগরের জলে ডুবে থাকে।

৩. দেশের আয়তন ২৬৮০২১ বর্গ কিলোমিটার। দেশের জনসংখ্যা সর্বশেষ আদমসুমারী অনুযায়ী মাত্র ৪৮,৬৭,৫৮০।

৪. এই দেশে জনসংখ্যার প্রায় ৭ গুণ বেশি ভেড়া এবং তিন গুণ বেশি গরু। এটা নিউ জিল্যান্ডের অর্থনীতির এক গুরুত্বপূর্ণ অংশ।

৫. বৰ্তমানে নিউ জিল্যান্ড শুধু ক্রিকেট নয়, অর্থনীতিতেও উন্নত দেশ হিসেবে পরিচিত। কিউই নামক ফল, গাছ , উল এবং দুধ জাতীয় পণ্যের রফতানির উপরে দেশের অর্থনীতি ব্যবস্থা নির্ভর করে থাকে। পর্যটন শিল্পও এই দেশের অর্থনীতিতে বড় ভূমিকা নেয়।

৬. নিউ জিল্যান্ডের জাতীয় মুদ্রা নিউ জিল্যান্ড ডলার কিউই নামেও পরিচিত। দেশের জাতীয় পাখির নামও কিউই। এই পাখি উড়তে পারেনা।

৭. ইংল্যান্ডের রানি এলিজাবেথ নিউ জিল্যান্ডের রাষ্ট্র প্রধান হিসেবে বিবেচিত হন। সেই সঙ্গে নিজস্ব প্রাইম মিনিস্টারও আছেন। বর্তমান প্রাইম মিনিস্টারের নাম জ্যাকিন্ডা আর্ডেন।

৮. নিউ জিল্যান্ডের দু’টি জাতীয় সঙ্গীত। একটি ‘গড সেভ দ্য ক্যুইন’ ও অপরটি ‘গড ডিফেন্ড দ্য নিউজিল্যান্ড’।

৯. এই দেশের মানুষ গাড়ি বিশেষ ভাবে পছন্দ করেন। তাই মাত্র ৪৮ লক্ষের দেশে ২০ লক্ষের বেশি গাড়ি চলে।

১০. দেশটি পর্যটনের জন্য বিখ্যাত। পর্যটকদের আনন্দ উপভোগের জন্য বিভিন্ন ব্যবস্থা এখানে আছে। জনপ্রিয় খেলা রাগবি এবং অবশ্যই বিখ্যাত বাঙ্গি জাম্পের জন্য প্রচুর পর্যটক এদেশে বেড়াতে যান। এছাড়াও ক্রিকেট ও গল্ফ তো আছেই। দেশের চারিদিকে বিশ্বমানের কিছু ক্রিকেট স্টেডিয়াম সারা পৃথিবীর ক্ৰিকেট প্রেমীদের আকর্ষণ করে।

Comments are closed.