সোমবার, আগস্ট ২০

রাফাল নিয়ে কেন মিন মিন করছে তৃণমূল! বুঝতে পারছে না কংগ্রেস

দ্য ওয়াল ব্যুরোকেন্দ্রে নরেন্দ্র মোদী সরকারের বিরুদ্ধে রাফাল-কেলেঙ্কারি নিয়ে তৃণমূল কংগ্রেসের কেন উৎসাহ নেই ঠাওর করতে পারছেন না কংগ্রেস নেতৃত্ব!

শুক্রবার সংসদের অধিবেশন বসার আগে রাফাল তদন্তে যৌথ সংসদীয় কমিটি গঠনের দাবিতে গান্ধী মূর্তির পাদদেশে ধর্না দেন সনিয়া গান্ধী। কংগ্রেস সাংসদরা ছাড়াও সেখানে অন্য বিরোধী দলের এমপি-রাও ছিলেন। তৃণমূলের তরফেও ছিলেন দুই সাংসদ,-আহমেদ হাসান ইমরান ও ইদ্রিশ আলি।

কিন্তু কংগ্রেসের নেতারাই ঘরোয়া আলোচনায় প্রশ্ন তুলছেন, কেন মাত্র দু’জন সাংসদকে পাঠালেন তৃণমূল নেতৃত্ব? একে তো রাফাল যুদ্ধবিমান কেনা নিয়ে সরকারের বিরুদ্ধে দুর্নীতি ও স্বজনপোষণের অভিযোগ মারাত্মক। তার উপর মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যখন মুখে বলছেন, তামাম বিরোধী দল একজোট হয়ে মোদী সরকারকে কোণঠাসা করে দিতে হবে! এই তার নমুনা!

তৃণমূল সূত্রে অবশ্য বক্তব্য, গতকাল রাত দশটা নাগাদ টেক্সট করে ধর্নার কথা জানানো হয়েছিল। অত রাতে জানালে তা দলের সব সাংসদকে জানানো মুশকিল।

কিন্তু তা নয় বোঝা গেল, জাতীয় রাজনীতির অলিন্দে প্রশ্ন উঠেছে, রাফাল নিয়ে সংসদের ভিতরে বাইরে আদৌ কি তৃণমূল কংগ্রেসকে সক্রিয় বিরোধিতায় দেখা গিয়েছে? অসমের জাতীয় নাগরিক পঞ্জির বিরোধিতায় তৃণমূল যতটা সরব, রাফাল নিয়ে ততটা নয় কেন? এই ফারাকের কারণ কী? আরও তাৎপর্যপূর্ণ হল, কদিন আগে দিল্লিতে গিয়ে যশবন্ত সিনহা-অরুণ শৌরীদের মতো বিজেপি-র নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করেছিলেন মমতা। মোদী সরকারের বিরুদ্ধে রাফাল দুর্নীতির অভিযোগ নিয়ে বুধবার দিল্লিতে বড় সড় সাংবাদিক বৈঠক করেছিলেন তাঁরা। গোটা রাফাল চুক্তিতে কী ভাবে দুর্নীতি হয়েছে তা ধরে ধরে বোঝানোর চেষ্টা করেন তাঁরা। কিন্তু এ ব্যাপারে তাঁদের পাশেও তৃণমূলকে দেখা যায়নি। তুলনায় রাহুল গান্ধী, সীতারাম ইয়েচুরিরা বরং যশবন্ত সিনহা-অরুণ শৌরীদের বক্তব্যে সহমত জানিয়ে হই চই শুরু করে দিয়েছেন।

প্রসঙ্গত, অতীতে ললিত মোদী কাণ্ডে কংগ্রেস যখন বিদেশ মন্ত্রী সুষমা স্বরাজের ইস্তফার দাবিতে সংসদ অচল করে দিয়েছিল, তখনও দূরত্ব রেখেছিল তৃণমূল। তবে সে ব্যাপারটা ছিল আলাদা।

কংগ্রেসের দিল্লি ও রাজ্য নেতাদের একাংশের মতে, হতে পারে তৃণমূলের একাধিক নেতা মন্ত্রীর বিরুদ্ধে যে হেতু আর্থিক কেলেঙ্কারির অভিযোগ রয়েছে, তা রাফালের ব্যাপারটা তাঁরা ইচ্ছাকৃত ভাবেই খোঁচাতে চাইছেন না। রাজনৈতিক শিবিরের আরেকটি অংশের মতে, রাফাল দুর্নীতি নিয়ে কংগ্রেস আঙুল তুলেছে শিল্পপতি অনিল অম্বানীর দিকে। হতে পারে অম্বানীদেরও চটাতে চাইছে না তৃণমূল।

বাংলায় বিরোধী দলনেতা আবদুল মান্নান বলেন, “মুখে বিজেপি-র বিরুদ্ধে বড় বড় কথা বলব, আর তলে তলে আঁতাত করব এবং কংগ্রেসকে দুর্বল করব,- কিছু রাজনৈতিক দলের এ হেন ভন্ডামি মানুষ বুঝে গিয়েছে। কাউকে বোকা বানানো যাবে না।”

Shares

Leave A Reply