রবিবার, ডিসেম্বর ১৫
TheWall
TheWall

চাকরিতে প্রোমোশন হওয়ায় বন্ধুর হাতে খুন যুবক

দ্য ওয়াল ব্যুরো, পূর্ব বর্ধমান : মালিককে বলে চাকরিতে বহাল করেছিলেন বন্ধুকে। সেই বন্ধুই কর্মদক্ষতার জোরে এগিয়ে যাওয়ায় তাঁকে পিটিয়ে, কুপিয়ে খুনের অভিযোগ উঠল এক যুবকের বিরুদ্ধে। বৃহস্পতিবার সকালে থানায় আত্মসমর্পণ করে ওই যুবক। ঘটনাটি ঘটেছে বর্ধমানের আলমগঞ্জে।

আলমগঞ্জেই একটি রাইসমিলে কাজ করতেন টুটুল মণ্ডল (২১)। একই মিলে কাজ করে অভিযুক্ত বিকাশচন্দ্র গড়াই। দু’জনেরই বাড়ি বীরভূমের সাঁইথিয়ায়। ছোটবেলা থেকেই বন্ধুত্ব টুটুল ও বিকাশের। ওই রাইস মিলের কর্মী নির্মল শ্যাম বলেন, বুধবার রাতে সজল নামে রাইস মিলের এক কর্মীর সঙ্গে মিলের গেটে বসে গল্প করছিলেন টুটুল। এই সময় মোবাইল ফোনে পেটিএম ডাউনলোড করার জন্য টুটুলকে ডাকে বিকাশ। সজল ফিরে যান। বেশ কিছুক্ষণ পরে আবার মিলের গেটে টুটুলকে খাওয়ার জন্য ডাকতে গিয়ে দেখেন রক্তাক্ত অবস্থায় পড়ে রয়েছেন তিনি।

খবর পেয়ে বর্ধমান থানার পুলিশ টুটুলকে উদ্ধার করে বর্ধমান মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখানে ডাক্তাররা তাঁকে মৃত বলে ঘোষণা করেন। এরপরেই আজ সকালে থানায় গিয়ে আত্মসমর্পণ করে বিকাশ।

পুলিশ জানিয়েছে, বছর দশেক ধরে আলমগঞ্জের ওই রাইসমিলে শ্রমিকের কাজ করছে বিকাশ। মাস আটেক আগে বিকাশই রাইসমিলে কাজের জন্য গ্রাম থেকে নিয়ে আসে টুটুলকে। প্রথমে শ্রমিক হিসাবে কাজে যোগ দিলেও খুব তাড়াতাড়িই মালিক টুটুলকে মিলের সুপারভাইজার করে দেন। লেখাপড়া জানায় অনেক সময়েই তাঁকে হিসেব রাখার দায়িত্বও দিতেন। পছন্দও করতেন খুব। টুটুলের কাকা সুমন মণ্ডল বলেন, ‘‘এইসব কারণেই টুটুলের উপর ক্ষোভ জন্মেছিল বিকাশের। সেই আক্রোশেই টুটুলকে খুন করে বিকাশ। প্রথমে ভারী কিছু  দিয়ে তাঁর মাথায় আঘাত করা হয়। তারপর মৃত্যু নিশ্চিত করতে গলায় ধারালো অস্ত্র দিয়ে কোপানো হয়।

পুলিশ জানিয়েছে, কী কারণে খুন, জানতে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে বিকাশকে।

Comments are closed.