সোমবার, এপ্রিল ২২

ডেঙ্গি নিয়ে সরকারি সংস্থাগুলির কাছে কৈফিয়ৎ চাইলেন অতীন

দ্য ওয়াল ব্যুরো: বর্ষা শুরুর আগে থেকেই ডেঙ্গি দমন কর্মসূচি শুরু করে দিয়েছিল কলকাতা পুরসভা। বিভিন্ন নির্মাণস্থলে জমা জল সাফ করার জন্য সক্রিয় হয়েছিলেন পুরকর্মীরা। বিভিন্ন সরকারি দফতরকেও সতর্ক করা হয়েছিল। ডেঙ্গি নিয়ে এবার রাজ্য সরকারের বিভিন্ন সংস্থার কাছে সরাসরি কৈফিয়ৎ তলব করল কলকাতা পুরসভা।

পুরসভার স্বাস্থ্য বিভাগের তরফে বৈঠক ডেকে বিভিন্ন কেন্দ্রীয় ও রাজ্য সরকারি সংস্থাকে ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে উদ্যোগ নিতে বলা হয়েছিল আগেই। এই সব সংস্থার আবাসন ও অফিস চত্বরে যাতে কোনও ভাবেই বৃষ্টির জল বা আবর্জনা জমে না থাকে সে বিষয়ে নিয়মিত নজরদারি করতে বলা হয়। কিন্তু বাস্তবে ডেঙ্গু মোকাবিলায় বেশ কিছু রাজ্য সরকারি সংস্থার ভূমিকায় অসন্তুষ্ট কলকাতা পুরনিগমের স্বাস্থ্যবিভাগের মেয়র পারিষদ অতীন ঘোষ।

সেই কারনেই বৃহস্পতিবার পুরসভায় তলব করা হয় কলকাতা পুলিশ, কেএমডিএ, স্বাস্থ্য দফতরের মতো রাজ্য সরকারি সংস্থাগুলিকে। আজ বৃহস্পতিবার পুরভবনে রাজ্য সরকারি সংস্থার প্রতিনিধিদের নিয়ে বৈঠক করেন মেয়র পারিষদ অতীন ঘোষ নিজে। বেশ কিছু প্রশ্নের উত্তর প্রতিনিধিদের কাছে জানতে চান অতীনবাবু।

তিনি জানান, পুরসভা মনে করছে কেএমডিএ-র বিভিন্ন নির্মাণের কাজে ঠিকাদারেরা পুরনির্দেশিকা মেনে কাজ করছে না। কলকাতা পুলিশ-সহ বিভিন্ন রাজ্য সরকারি সংস্থার আবাসনগুলিতেও বৃষ্টির জল জমে থাকছে। শহরের হাসপাতালগুলি আরও পরিচ্ছন্ন রাখা প্রয়োজন। সর্বত্র নিকাশি ব্যবস্থা যাতে সক্রিয় থাকে, চত্বর যাতে আরও সাফসুতরো থাকে, তা দেখার পরামর্শ দিয়েছেন অতীনবাবু। কলকাতা পুরআইনের জঞ্জাল অপসারণ সংক্রান্ত ৪৯৬এ ধারা যাতে দ্রুত কার্যকর করা হয়, সেই নির্দেশও দেন অতীনবাবু। বৈঠকে কেএমডিএ, পরিবহন দফতর, পূর্ত দফতর, দমকল, স্বাস্থ্য দফতর, আবাসন দফতরের আধিকারিকেরা উপস্থিত ছিলেন এ দিন।

যদিও এ দিন বৈঠকে আসেননি কলকাতা পুলিশের কোনও আধিকারিক। তাঁদের অনুপস্থিতির কারণ জানতে চাইলে অতীনবাবু বলেন, “কোথাও কমিউনিকেশন হয়তো গ্যাপ হয়েছে। আমরা পরে আবার ডেঙ্গু নিয়ে মিটিং ডাকব, যেখানে পুলিশ থাকবে।”

Shares

Leave A Reply