শুক্রবার, অক্টোবর ১৮

দুষ্কৃতীর বাড়ি ঘিরে ফেলতেই গুলি, জখম সাব ইন্সপেক্টর, আরেক পুলিশের মাথায় কোপ

দ্য ওয়াল ব্যুরো, উত্তর দিনাজপুর: এক কুখ্যাত দুষ্কৃতীকে পাকরাও করতে গিয়ে আক্রান্ত পুলিশ। গুলিবিদ্ধ এক সাব ইন্সপেক্টর। আরেক জন সাব ইন্সপেক্টরের এর মাথায় ধারালো অস্ত্রের কোপ দেওয়া হয়েছে বলে অভিযোগ। চোপড়া থানার লক্ষ্মীপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের ডাঙাপাড়া এলাকায় এই ঘটনায় তীব্র চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়। গ্রেফতার করা হয়েছে কুখ্যাত দুষ্কৃতী মহম্মদ সওদাগরকে।

আহত পুলিশ কর্মীদের প্রথমে ইসলামপুর হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। প্রবীণ গুরুং নামে পুলিশ আধিকারিকের মাথার আঘাত গুরুতর হওয়ায় তাকে শিলিগুড়ির একটি বেসরকারি নার্সিংহোমে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। আরেক আধিকারিক পিন্টু বর্মনের পেটের ডান দিকে গুলি লাগে। উত্তরবঙ্গ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয়েছে তাঁকে৷

শুক্রবার গভীর রাতে ডাঙাপাড়ায় মহম্মদ সওদাগর নামের ওই দুষ্কৃতীর খোঁজে যায় পুলিশ। সওদাগর খুন ও ডাকাতির একাধিক অপরাধে অভিযুক্ত বলেই পুলিশ সুত্রে জানা গেছে ৷ অভিযোগ, পুলিশ বাড়ি ঘিরে ফেলেছে টের পেয়েই পুলিশের ওপর চড়াও হয় সওদাগর ও তার দলবল। পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি চালায় তাঁরা। গুলিবিদ্ধ হন সাব ইন্সপেক্টর পিন্টু বর্মন। সাব ইন্সপেক্টর প্রবীণ গুরুং এর মাথায় ধারালো অস্ত্রে গভীর ক্ষত হয়েছে। তবে এই আচমকা আক্রমণের পরেও পিছু হটেনি পুলিশ ৷ ঘটনাস্থল থেকে গ্রেফতার করা হয় সওদাগর ও তার বেশ কয়েকজন সঙ্গীকে। চোপড়া থানায় উপস্থিত হয়েছেন জেলা পুলিশের উচ্চপদস্থ আধিকারিকরা।

এ দিকে এই ঘটনা নিয়েও শুরু হয়েছে রাজনৈতিক টানাপড়েন। ধৃত দুষ্কৃতীরা কংগ্রেস আশ্রিত বলে অভিযোগ উঠেছে। এলাকার কংগ্রেস নেতৃত্ব এ কথা মেনে নিলেও পুলিশের উপর হামলার ঘটনায় তৃণমূল কংগ্রেস জড়িত বলে অভিযোগ তুলেছে। স্থানীয় কংগ্রেস নেতা অশোক রায় বলেন, “সওদাগরকে ধরে আনার সময় পুলিশের উপর হামলা হয়। এবং তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতীরাই সেই হামলা চালিয়েছে।” চোপড়া ব্লকের যুব তৃণমূল সভাপতি জাকির আবেদিনের পাল্টা দাবি, “লক্ষ্মীপুর এলাকায় শক্তির নিরিখে চিরকালই সংখ্যালঘু তৃণমুল কংগ্রেস। যা ঘটনা ঘটেছে তার পুরোটাই ঘটিয়েছে কংগ্রেস আশ্রিত দুষ্কৃতীরা।”

পাশাপাশি রায়গঞ্জ লোকসভার সাংসদ তথা কেন্দ্রীয় নারী ও শিশু কল্যাণ দফতরের  রাষ্ট্রমন্ত্রী দেবশ্রী রায়চৌধুরী ও বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ এই ঘটনায়  পশ্চিমবঙ্গে আইনের শাসন ভেঙে পড়েছে বলে দাবি করেছেন।

এ দিন ডাঙাপাড়া পরিদর্শন করেন আইজি (নর্থ বেঙ্গল) আনন্দ কুমার। তিনি বলেন, “আসামি ধরতে গিয়ে দুষ্কৃতীদের গুলিতে আহত হয়েছেন আমাদের দুই পুলিশ কর্মী। বর্তমানে তাঁরা চিকিৎসাধীন রয়েছে। ঘটনার তদন্ত শুরু করা হয়েছে। এর সাথে আরও কারা জড়িত আছে তাদের খোঁজে তল্লাশি চলবে। শীঘ্রই তাদের গ্রেফতার করা হবে।”

Comments are closed.