রবিবার, আগস্ট ২৫

ওঝার কেরামতিতে ফের সাপে কাটা রোগীর মৃত্যু সুন্দরবনে

দ্য ওয়াল ব্যুরো, উত্তর ২৪ পরগনা : সচেতনতা শিকেয় তুলে ফের ওঝার কেরামতিতে প্রাণ গেল সাপে কাটা রোগীর। হিঙ্গলগঞ্জের কনকনগরে। হুগলির চুঁচুড়ার যুবক নবকুমার মণ্ডল(২২) সুন্দরববনে মামার বাড়িতে বেড়াতে গিয়েছিলেন। সেখানেই সাপ ছোবল দেওয়ার পর একশো মিটার দূরের হাসপাতালে না নিয়ে গিয়ে এক ওঝার কাছে নিয়ে যাওয়া হয় তাঁকে। ঝাড়ফুঁকে যখন প্রায় নেতিয়ে গিয়েছে শরীর, তখন নিয়ে যাওয়া হয় হাসপাতালে। কিন্তু শেষরক্ষা হয়নি।

জানা গেছে, সোমবার হিঙ্গলগঞ্জের কনকনগরে মামা নিতাইচন্দ্র মৃধার বাড়িতে বেড়াতে গিয়েছিল নবকুমার। মঙ্গলবার পুকুরে মাছ ধরতে যাওয়ার সময় ধানক্ষেতের মধ্যে সাপ ছোবল মারে তাঁকে। মাত্র ১০০ মিটার দূরে হাসপাতাল থাকলেও, সেখানে না নিয়ে গিয়ে তাঁর মামারা এক ওঝার দ্বারস্থ হয়। বেশ কয়েক ঘণ্টা ধরে চলে ঝাড়ফুঁক, গাছের শিকড় বেটে খাওয়ানো। ততক্ষণে আস্তে আস্তে নেতিয়ে পড়ে সে। বেগতিক দেখে তখন ওই যুবককে নিয়ে যাওয়া হয় হিঙ্গলগঞ্জের হাসপাতালে।

ডাক্তাররা জানান, হাসপাতালে যখন নিয়ে আসা হয় ওই যুবককে, তখন অনেক দেরি হয়ে গেছে। আর কিছুই তেমন করার ছিল না তাঁদের। তবুও অ্যান্টিভেনাম ইঞ্জেকশন দিয়ে তাঁকে বাঁচানোর চেষ্টা করেন তাঁরা। কিন্তু সেই চেষ্টা সফল হয়নি। কোন সাপ তাঁকে ছোবল মেরেছে, তাও চিহ্নিত হয়নি। তবে হাসপাতালে নবকুমারের মৃত্যুর পর চিকিৎসায় গাফিলতির অভিযোগ তুলে দীর্ঘক্ষণ বিক্ষোভ দেখান তাঁর পরিবারের লোকজন।

জেলা প্রশাসন ও বিজ্ঞান মঞ্চের পক্ষে সাপে কাটা রোগীকে ওঝার কাছে না নিয়ে সোজা হাসপাতালে আনার জন্য নিত্যই প্রচার চলছে গোটা সুন্দরবন জুড়েই। তবুও কাটছে না অন্ধকার। এমনটাই বক্তব্য এলাকার মানুষের একাংশের। এ ক্ষেত্রেও ওই যুবককে সঙ্গে সঙ্গে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলেই রক্ষা পেত প্রাণ।

ঘটনার পর থেকেই গা ঢাকা দিয়েছে ওঝা। তার খোঁজে তল্লাশি চলছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

Comments are closed.