শুক্রবার, অক্টোবর ১৮

ঝাড়গ্রামে বিজেপি কর্মীর উপর হামলা, টাঙ্গির কোপে জখম প্রৌঢ়

  • 11
  •  
  •  
    11
    Shares

দ্য ওয়াল ব্যুরো, ঝাড়গ্রামঝাড়গ্রামে ফের আক্রান্ত বিজেপি কর্মী। এ বার টাঙ্গির কোপে জখম হলেন বেলিয়া গ্রামের বিজেপির বুথ সভাপতি মলয় দলুইয়ের বাবা নিরঞ্জন দলুই। নিরঞ্জনবাবু নিজেও বিজেপির সক্রিয় কর্মী বলে জানা গেছে।

শুক্রবার রাত দশটা নাগাদ বাড়ির সামনের রাস্তায় দাঁড়িয়ে ছিলেন বছর ৫৫ র ওই প্রৌঢ়। অভিযোগ, সেই সময়ই দশ থেকে পনেরো জনের একটি দুষ্কৃতী দল টাঙ্গি ও বাঁশ নিয়ে চড়াও হয় নিরঞ্জনবাবুর উপর। তাঁর মাথায় ও পায়ে টাঙ্গির কোপ মারে দুষ্কৃতীরা। ঘটনাস্থলেই লুটিয়ে পড়েন নিরঞ্জনবাবু। তাঁর চিৎকার শুনে ছুটে আসেন পড়শিরা। আসেন তাঁর ছোট ছেলে রামু দলুইও। নিরঞ্জনবাবুকে উদ্ধার করে তাঁর বাড়িতে নিয়ে যান এলাকার মানুষজন। অভিযোগ, তখনও পর্যন্ত ওই এলাকাতেই গা ঢাকা দিয়েছিল দুষ্কৃতীরা । তাই ভয়ে কেউ বাইরে বের হতে পারেননি।  মিনিট পনেরো পরে তারা এলাকা ছেড়ে চলে গেলে নিরঞ্জনবাবুকে ঝাড়গ্রাম সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।

যারা নিরঞ্জন বাবুর উপর হামলা করে তারা প্রত্যেকেই তৃণমূলের লোকজন বলে অভিযোগ করেন রামু দোলুই। গ্রামের বিজেপি কর্মীরা বলেন, নিরঞ্জনবাবুর ছেলে মলয় দোলুইকে খুন করার জন্যই এসেছিলো তৃণমূল লোকজন। মলয়কে না পেয়ে তাঁর বাবার উপর হামলা করে। বিজেপির ঝাড়গ্রাম জেলা সম্পাদক বিল্টু বেরা বলেন, বারবার এলাকায় অশান্তির পরিবেশ তৈরি করছে তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতীরা। এর আগেও বিজেপি কর্মীর উপর হামলা করেছে। আবারও একই ঘটনা ঘটিয়েছে তৃণমূল।

গত ২৯ তারিখ শনিবার রাতে, জামবনি ব্লকের বাঘুয়া গ্রামে বন্ধুদের সঙ্গে হরিনাম সংকীর্তন শুনতে গিয়ে গুলিবিদ্ধ হয়েছিলেন খণপতি মাহাতো নামে এক বিজেপি কর্মী। বর্তমানে সুস্থ রয়েছেন তিনি। সেই ঘটনাতেও অভিযোগ উঠেছিল তৃণমূলের বিরুদ্ধে।

এলাকার তৃণমূল নেতৃত্ব অবশ্য এই হামলার অভিযোগ অস্বীকার করেছে। শুক্রবারের ঘটনা সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করা হলে, স্থানীয় তৃণমূল বিধায়ক সুকুমার হাঁসদা বলেন, আমার কাছে এমন কোনও খবরই নেই। মিথ্যে এ সব অভিযোগ উঠছে।

Comments are closed.