রবিবার, অক্টোবর ২০

ইটাহারে তৃণমূল নেতা খুনের ঘটনায় গ্রেফতার ১

দ্য ওয়াল ব্যুরো, উত্তর দিনাজপুর: ইটাহারে জনপ্রিয় তৃণমূল নেতা বিকাশ তথা মাধু মজুমদারকে খুনের ঘটনায় গ্রেফতার করা হল এক যুবককে। পুলিশ জানিয়েছে, ধৃতের নাম সুকুমার দাস। রবিবার তাকে রায়গঞ্জ আদালতে তোলা হয়েছে। ধৃতের ১৪ দিনের পুলিশি হেফাজতের আবেদন জানানো হয়েছে।

শুক্রবার রাতে ইটাহার থানা থেকে ফেরা পথে তাঁকে গুলি করে পালায় দুষ্কৃতীরা। এলাকার বাসিন্দারা জানন, গুলির শব্দ পেয়ে বাইরে এসে বিকাশবাবুকে রক্তাক্ত অবস্থায় রাস্তায় পড়ে থাকতে দেখা যায়। একটি সাদা গাড়িকেও সেখান থেকে পালাতে দেখেন বলে দাবি করেন বাসিন্দারা। শনিবার সকালে বিকাশবাবুর মরদেহ নিয়ে দীর্ঘক্ষণ ৩৪ নম্বর জাতীয় সড়ক অবরোধ করে রেখে বিক্ষোভ দেখান স্থানীয় তৃণমূল সমর্থকেরা।

পুলিশ জানিয়েছে, ধৃত যুবক সুকুমার ২০১৪ সালে একটি ঘটনায় পকসো আইনে সাজা পেয়ে জেলে যায়। সেই ঘটনায় মূল সাক্ষী ছিলেন তৃণমুল নেতা বিকাশ মজুমদার। চলতি বছরের মার্চ মাসে কলকাতা হাইকোর্ট থেকে জামিনে মুক্ত হয় সুকুমার। বিকাশবাবুকে সে লাগাতার হুমকি দিচ্ছিল বলে জানিয়েছে পুলিশ।

পাশাপাশি, বিকাশবাবুকে যেখানে খুন করা হয় সেই এলাকা থেকে কিছুটা দূরেই সুকুমারের বাড়ি। পেশায় গাড়িচালক সুকুমার একটি সাদা গাড়িও চালায়। তাই সব মিলিয়ে দুয়ে দুয়ে চার করেছে পুলিশ। শনিবার রাতেই সুকুমারকে গ্রেফতার করে পুলিস। তবে, জেরায় সে কিছু জানিয়েছে কি না সেটা জানা যায়নি। তবে, সুকুমারকে অপরাধী বলতে মানতে নারাজ ইটাহারের বেশিরভাগ বাসিন্দারাই। সে খুন করতে পারে একথা বিশ্বাস করছেন না অনেকেই।

ইটাহারে তৃণমূল নেতা খুনের ঘটনার খোঁজ খবর নিতে আইজি (উত্তরবঙ্গ) আনন্দ কুমারের সঙ্গে ছিলেন ডিআইজি (মালদা) জয়ন্ত কুমার পাল ও জেলার নতুন এসপি সুমিত কুমার। আলগ্রাম মাঠের পাশে যেখানে তৃণমূল নেতা বিকাশ মজুমদারকে পাওয়া যায় সেখানে গিয়ে তাঁরা গোটা বিষয়টা বোঝার চেষ্টা করেন তদন্তকারী পুলিশ অফিসারদের কাছ থেকে। কথা বলেন এলাকার মানুষদের সঙ্গেও। আনন্দ কুমার জানিয়েছেন, খুনের ঘটনার তদন্তে পুলিশকে সাহায্য করছেন সিআইডি অফিসারেরাও।

Comments are closed.