দীপান্বিতা সরকার

কারা এসে উঠেছিল মন্দির চাতালে ঠা-ঠা রোদে পাহাড় চুড়োয় ? এক হরিণ আর এক ব্যাধ। তখনও জানে না পাথরের
খাঁজে খাঁজে ঘাপটি মেরে লুকিয়ে আছে মৌচাকের বাসা, মধুর ফোয়ারা। দূর গাছগাছালির ছায়ায়, রেল লাইনের ওপারে
কে যেন পা ধোবে ব’লে দাঁড়িয়ে ছিল, আর কে যেন আনমনে টিউবওয়েল পাম্প করেই যাচ্ছিল করেই যাচ্ছিল… সব
কাদা উঠে গিয়ে দু’পায়ের পাতা অপলক তাকিয়ে দেখেছিল সেই অন্যমন। সন্ধের রেণু উড়ে এসে বসল যে সব
আগাছায়, ডালে ডালে, তাদের শিশুফুল অপেক্ষা ক’রে আছে কোন হরিণ জননীর? লুকিয়ে দুধ দেবার সময় যে
আচমকা ম’রে যাবে সেই ব্যাধের হাতে ! কত জল এরপর কত কত শ্যাওলা আজও পথ চেয়ে বসে আছে অপূর্ব সেই
হত্যা দেখবে ব’লে।